• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

ভারতের কাঁচা মরিচেও ঝাল বাংলাদেশে!

শাহীনুর রহমান ও এম এ আজিজ
|  ১২ জুলাই ২০১৮, ১২:২২ | আপডেট : ১২ জুলাই ২০১৮, ১৫:৫৫
গত কয়েকদিনে আমদানি বেড়েছে কাঁচা মরিচের। বাংলাদেশের বাজারে যোগানের তুলনায় চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় পণ্যটি এখন ভারত থেকে আমদানি হচ্ছে। তবে তাতেও ঝাল কম নয়। বরং দেশি মরিচের চেয়ে আমদানি মরিচেরই দাম বেশি পড়ছে।

গত দুইদিনে আমদানি মরিচের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ থেকে ১৫ টাকা। যা আগে হিলি স্থলবন্দরে প্রতিকেজি বিক্রি হয়েছে ৬৮ থেকে ৭০ টাকা। এখন সেই মরিচ বন্দরে বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি প্রকার ভেদে ৮০ থেকে ৮৫ টাকা।

আমদানিকারকরা বলছেন, ভারতের বাজারে কাঁচা মরিচের দাম বেড়ে যাওয়ায়  সেখান থেকেই বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। যার কারণে দাম বেড়েছে।

হিলি স্থল বন্দরের শুল্ক কর্মকর্তা রেজভি আহমেদ বলেন, বাংলাদেশের বাজারে কাঁচা মরিচের যোগান পর্যাপ্ত থাকলে সাধারণত পণ্যটি তেমন আমদানি হয় না। কিন্তু বর্তমানে যোগান সংকট থাকায় ভারত থেকে আমদানি করা হচ্ছে।

“গত ৭ কার্যদিবসে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে আমদানি হয়েছে ৩৪ ট্রাকে ৩০০ মেট্রিকটন কাঁচা মরিচ। আর এসব কাঁচা মরিচ আমদানি হচ্ছে ভারতের নাগপুর, আসাম, বিহার রাজ্য থেকে। যার দাম পড়ছে টনপ্রতি প্রায় ৩০০ ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা পড়ে ২৫ হাজার টাকার ওপরে। এর ওপর আবার আমদানিকারকদের শুল্ক দিতে হয়।”  

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন: এখন বিদায় নিলে সেটা হবে তৃপ্তির: অর্থমন্ত্রী
--------------------------------------------------------

জানা গেছে, বৃষ্টির কারণে মরিচ গাছে পচন ধরেছে। এছাড়াও ফুলফল পচে যাওয়ায় মরিচের উৎপাদন ব্যাপক হ্রাস পেয়েছে। ফলে বাজারে মরিচের দাম চড়ে গেছে।  মাস খানেক ধরে কাঁচা মরিচের দাম চড়ছে। স্থানীয় বাজারের পাশাপাশি রাজধানীর বাজারেও তাই মরিচের দাম এখন চড়া।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, বৃষ্টির প্রভাবে বাজারে পণ্যটির দর এখন চড়া। তাছাড়া ভারত থেকে আনা আমদানি মরিচেরও দাম বেশি দিতে হচ্ছে। ফলে ভারত থেকে পণ্য এনে বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর কারওয়ানবাজারের পাইকারী বাজারে সরিজমিনে দেখা যায়, পাইকাররা ভারত থেকে আমদানি করা মরিচ কেজিপ্রতি বিক্রি করছেন ১০০ থেকে ১১০ টাকা। আর দেশি মরিচ (মানিকগঞ্জ থেকে আসা) বিক্রি করছেন ৯০ থেকে ১০০ টাকা। খুচরা বাজারে গিয়ে তা বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৫০ টাকায়।

তরিকুল ইসলাম নামের এক পাইকার আরটিভি অনলাইনকে বলেন, দুই সপ্তাহ আগেও আমরা এই মরিচ ৩০ থেকে ৪০ টাকা দরে কিনেছি। এখন তা ৮০ থেকে ৯০ টাকা দরে কিনতে হচ্ছে। যার কারণে আমাদের দামও বাড়িয়ে দিতে হচ্ছে।

তবে উৎপাদন বাড়লে দাম কমে আসবে বলে জানান তিনি।

এদিকে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস সূত্রে জানা গেছে, সেখানে এখন কাঁচা মরিচের দাম বেড়ে বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৫০ থেকে ৬০ রুপি। পেঁয়াজের দামও বাড়ার আশঙ্কা দেখছেন ব্যবসায়ীরা।

আরও পড়ুন:

এসআর 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়