সামনে ঈদ

রেমিটেন্সের পালে হাওয়া

প্রকাশ | ০৪ জুন ২০১৮, ১০:১৯ | আপডেট: ০৪ জুন ২০১৮, ১০:৩৬

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট

সামনে ঈদ, তাই তার আগে দেশে বেশি করে টাকা পাঠিয়েছেন বিভিন্ন দেশে কর্মরত বাংলাদেশিরা। আর তার ওপর ভর করেই সদ্য শেষ হওয়া মে মাসে রেমিটেন্সের পালে হাওয়া লেগেছে।

আলোচ্য মাসে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভে এসেছে ১৪৮ কোটি ২৮ লাখ ডলারের রেমিটেন্স।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

ওই তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, মে মাসে যে পরিমাণ টাকা দেশে এসেছে, তা একক মাস হিসেবে গত চার বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ এবং এ যাবৎকালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রেমিটেন্স।

গেলো কয়েক মাস ধরে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স বাড়ছে। সামনে ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে এই নতুন গতি পেয়েছে। এ নিয়ে চলতি অর্থবছরের ১১ মাসে রেমিটেন্স এক হাজার ৩৫৭ কোটি ৫১ লাখ ডলার।

২০১৬-১৭ অর্থবছরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত বাংলাদেশিরা প্রায় এক হাজার ২৭৭ কোটি ডলার অর্থ দেশে পাঠান। সে হিসেবে চলতি অর্থবছর পূর্ণ হতে এখনও এক মাস সময় বাকি। এই সময় বাকি থাকতেই রেমিটেন্স গেলো বছর থেকে ছাড়িয়ে গেছে।

অর্থ বিশ্লেষকরা বলছেন, এই ধারবাহিকতা বজায় থাকলে চলতি অর্থবছরে রেমিটেন্স দেড় হাজার কোটি ডলার স্পর্শ করতে পারে।

গত অর্থবছরে (২০১৬-১৭) রেমিটেন্স বেশ কমেছিল। অর্থনীতির অন্যতম প্রধান এই সূচক বাড়াতে সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংক নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করে, যার ইতিবাচক ফল এখন পাওয়া যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক কাজী ছাইদুর রহমান বলেন, গত বছরে একসময় রেমিটেন্স প্রবাহে খরা ছিল। কিন্তু বর্তমানে সেই নেতিবাচক ধারা কেটে গেছে। আশা করছি অর্থবছর শেষে ভালো একটা ফলাফল পাবো।

তিনি বলেন, হুন্ডি প্রতিরোধে অবৈধ মোবাইল ব্যাংকিং নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। বর্তমানে ডলারের দাম কিছুটা বেড়েছে, এর প্রভাবেও রেমিটেন্স বাড়ছে। ডলারের চাহিদা মেটাতে ব্যাংক তার নিজের স্বার্থেই ব্যাংকিং চ্যানেলে প্রবাসীদের রেমিটেন্স আনার চেষ্টা করছে। সে কারণেও রেমিটেন্স বাড়বে।

তবে মে মাসের রেমিটেন্সের বিষয়টি মূলত ঈদকেন্দ্রিক। ঈদকে কেন্দ্র করে বেশি রেমিটেন্স পাঠাচ্ছেন প্রবাসীরা। ঈদ পর্যন্ত এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

এর আগে ২০১৪ সালের জুলাই মাসে বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ১৪৯ কোটি ২৪ লাখ ডলারের রেমিটেন্স এসেছিল দেশে।

দেশের রেমিটেন্সের অর্ধেকের বেশি আসে মধ্যপ্রাচ্যের ছয় দেশ- সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, ওমান, কুয়েত ও বাহরাইন থেকে।

২০১৪-১৫ অর্থবছরে রেকর্ড এক হাজার ৫৩১ কোটি ৬৯ লাখ (১৫.৩১ বিলিয়ন) ডলারের রেমিটেন্স বাংলাদেশে আসে। এরপর তিন বছর ধারাবাহিকভাবে রেমিটেন্স কমেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, মে মাসে রাষ্ট্রায়ত্ত ৬ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে ৩৫ কোটি ৯৬ লাখ ডলারের রেমিটেন্স এসেছে। বিশেষায়িত দুই ব্যাংকের (কৃষি ব্যাংক ও রাকাব) মাধ্যমে এসেছে ১ কোটি ২৩ লাখ ডলার।

এছাড়া ৩৯ বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে ১০৯ কোটি ৭৬ লাখ ডলার। এছাড়া ৯টি বিদেশি ব্যাংকের মাধ্যমে ১ কোটি ৩৪ লাখ ডলারের রেমিটেন্স দেশে এসেছে গত মাসে।

এসআর