• ঢাকা বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

পদ্মা সেতুতে বসছে চতুর্থ স্প্যান, প্রস্তুত আরও ১৬টি

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১২ মে ২০১৮, ১৪:২২ | আপডেট : ১২ মে ২০১৮, ১৪:৩০
দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে পদ্মা সেতুর কাজ। সরকারের পক্ষ থেকে আশা করা হচ্ছে, ২০১৯ সালেই পুরো পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজ শেষ করা যাবে।

পদ্মা সেতুর চতুর্থ স্প্যানটি এখন চলে গেছে জাজিরা প্রান্তে। আগামী ১৪ বা ১৫ তারিখে স্প্যানটি ৪০ ও ৪১ নম্বর পিয়ারে বসানো হতে পারে। এর ফলে পদ্মা সেতুর ৬০০ মিটার এ সপ্তাহেই দেখা যাবে।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আজ শনিবার ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্য ও তিন হাজার ১৪০ টন ওজনের চতুর্থ স্প্যানটি প্রায় ৬ কিলোমিটার বহন করে নিয়ে যায় তিন হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার ‘তিয়ান ই’ ক্রেন। এর আগে ইয়ার্ডে পেইন্টিংয়ের কাজ শেষ করা হয় স্প্যানটির। সরিয়ে নেয়া হয়েছে পিলারের পাইল স্থাপনের জন্য চ্যানেলে থাকা ফ্লোটিং ক্রেনগুলো।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ২৯ ও ৩০ নম্বর পিলারের মধ্যবর্তী এলাকায় অবস্থান করছিল স্প্যান বহনকারী ভাসমান ক্রেনটি।

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন :বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট নিয়ে কিছু অজানা তথ্য
--------------------------------------------------------

প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম জানান, মাওয়া প্রান্ত থেকে চতুর্থ স্প্যানটি জাজিরা প্রান্তের নির্দিষ্ট গন্তব্যের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে। সবকিছু অনুকূলে থাকলে কয়েকদিনের মধ্যেই বসবে চতুর্থ স্প্যান। ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের খুঁটিনাটি নানা বিষয় আছে যা আনেক সময় নির্ধারিত সময়ে হয় না।

এছাড়া মাওয়ার কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে আরও ১৬টি স্প্যান প্রস্তুত রয়েছে। এগুলোর ওপর রং দেওয়ার কাজ চলছে। এখন পিআরের ওপর স্প্যানগুলো বসানোর অপেক্ষা চলছে।

এর আগে ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে প্রথম স্প্যানটি বসানোর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হয় পদ্মা সেতু। এরপর এ বছরের ২৮ জানুয়ারি ৩৮ ও ৩৯ নম্বর খুঁটিতে বসানো হয় দ্বিতীয় স্প্যান। সবশেষ গত ১১ মার্চ ৩৯ ও ৪০ নম্বর খুঁটির ওপর বসে তৃতীয় স্প্যান।

পদ্মা সেতুর প্রকল্পের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, আগের পাঁচটি খুঁটিসহ আগামী দুই মাসের মধ্যে মোট ১৮টি খুঁটি দৃশ্যমান করা সম্ভব হবে।

এদিকে আরও একটি সুখবর দিয়েছে রেল বিভাগ। সম্প্রতি রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেছেন- যেদিন পদ্মা সেতু চালু হবে, সেদিন থেকেই সেতু দিয়ে রেল চলাচল করবে। এ লক্ষ্য নিয়ে কাজ চলছে।

আরও পড়ুন : 

এসআর

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়