• ঢাকা বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

কেমন গেল ঢাকার পুঁজিবাজার?

শাহীনুর রহমান
|  ৩১ মার্চ ২০১৮, ১১:০২ | আপডেট : ৩১ মার্চ ২০১৮, ১১:৩৮
প্রতীকী ছবি
টানা ৫ সপ্তাহ পতনের পর গেল সপ্তাহে ঢাকার বাজারে প্রধান মূল্যসূচক ইতিবাচক ধারায় শেষ হয়েছে। তবে কমেছে লেনদেন। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ- ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স গত সপ্তাহের চেয়ে ১৬ দশমিক ৮৬ পয়েন্ট বা দশমিক ৩০ শতাংশ বেড়েছে।

এর আগের সপ্তাহে সূচকটি কমেছিল ১৪০ দশমিক শূন্য ১ পয়েন্ট বা ২ দশমিক ৪৫ শতাংশ। আর আগের টানা ৫ সপ্তাহের পতনে ডিএসইএক্স কমেছিল ৪৬৯ পয়েন্ট।

অর্থাৎ ৪৬৯ পয়েন্ট কমার পর ডিএসইর প্রধান সূচকটি ১৬ দশমিক ৮৬ পয়েন্ট বাড়ল।

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন: রূপালী ব্যাংকের লিখিত পরীক্ষা বাতিল, আটক ৫
--------------------------------------------------------

ডিএসইর গত সপ্তাহের বাজার বিশ্লেষণে দেখা গেছে, এ সময়ে লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ২৮৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় ১ হাজার ৭৬৯ কোটি ৪২ লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন কমেছে ৪৮৫ কোটি ৭২ লাখ টাকা বা ২৭ দশমিক ৪৫ শতাংশ।

গেল সপ্তাহে দিনে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৩২০ কোটি টাকার কিছু বেশি। আগের সপ্তাহে যা ছিল প্রায় ৩৫৪ কোটি টাকা।

ঢাকার বাজারে শেষ সপ্তাহে লেনদেনে অংশ নিয়েছে ৩৪১টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে বেড়েছে ১০৯টির শেয়ারের দর, কমেছে ২০২টির এবং অপরিবর্তিত আছে ২৯টির।

এ বাজারে অপর দুই সূচকের মধ্যে শেষ সপ্তাহে ডিএসই-৩০ বেড়েছে ২৩ দশমিক ৭৫ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ১৪ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এ সূচকটি কমে ৩৩ দশমিক ৮৩ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৬০ শতাংশ।

আর ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক শেষ সপ্তাহেও কমেছে। এ সূচকটি কমেছে ৭ দশমিক ৩৬ পয়েন্ট বা দশমিক ৫৬ শতাংশ। আগের সপ্তাহে এই সূচকটি কমে ২৬ দশমিক ৭৪ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ।

এ সপ্তাহের শেষদিনে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৯১ হাজার ৭১৮ কোটি টাকায়। যা তার আগের সপ্তাহের শেষদিনে ছিল ৩ লাখ ৯২ হাজার ৪৩৮ কোটি টাকা।

লেনদেনের শীর্ষ ৫ কোম্পানির মধ্যে রয়েছে- গ্রামীণফোন, স্কয়ার ফার্মাসিটিউক্যাল, ব্র্যাক ব্যাংক, মার্কেন্টাইল ব্যাংক ও স্যালভো কেমিক্যাল।

দরবৃদ্ধিতে শীর্ষ ৫ কোম্পানির মধ্যে ছিল- নর্দার্ন জুট ম্যানফ্যাকচারিং, ডেলটা লাইফ ইনসুরেন্স কোম্পানি, প্রিমিয়ার ব্যাংক, গ্রিন ডেলটা এবং ব্র্যাক ব্যাংক।

দরপতনের শীর্ষ ৫ কোম্পানির মধ্য ছিল- কুইন সাউথ টেক্সটাইল, সিএপিএম আইবিবিএল ফান্ড, জিল বাংলা, এসইএমএল আইবিবিএল শরিয়াহ ফান্ড ও এমারেল্ড অয়েল।

আরও পড়ুন:

এসআর

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়