• ঢাকা বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

১০ দিনেই চ্যাপ্টা ফেসবুক!

শাহীনুর রহমান
|  ২৮ মার্চ ২০১৮, ১৩:২৩ | আপডেট : ২৯ মার্চ ২০১৮, ১৪:০৪
অনুমতি ছাড়া কোটি কোটি ব্যবহারকারীর ফেসবুক তথ্য চুরি করেছে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা। সেই তথ্য ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্বাচনে ব্যবহার করে জনমতকে প্রভাবিত করেছে ব্রিটিশ সংস্থাটি। শুধু তাই নয়, ব্রেক্সিটের সময়ও জনমতকে প্রভাবিত করতে সেই তথ্যকে কাজে লাগানো হয়।

এতে ফেসবুক তার ব্যবহারকারীর তথ্যের সুরক্ষা দিতে ব্যর্থ হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আর এ অভিযোগকে কেন্দ্র করে চাপে চ্যাপ্টা হয়ে গেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি।

সবশেষ এ ঘটনায় তদন্তে নামছে মার্কিন ফেডারেল ট্রেড কমিশন। এ খবরের পর ফেসবুক শেয়ারবাজারে আরও তলানিতে নেমেছে। গেলো ১০ দিনে জনপ্রিয় মাধ্যমটির গচ্চা দিতে হয়েছে ৯০ বিলিয়ন বা ৯ হাজার কোটি ডলার।

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন: ২ শতাংশ সুদে ৫১ মিলিয়ন ডলার ঋণ দিচ্ছে কুয়েত
--------------------------------------------------------

গত ১৬ মার্চ কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মূল্য যেখানে ছিল ১৮৫ ডলার, সেখানে বর্তমানে তা নেমে এসেছে ১৫২ ডলারে। অর্থাৎ এ সময়ে দর নেমেছে প্রায় ৩৩ ডলার। এর ফলে ফেসবুকের বাজার মূলধন নেমে এসেছে ৫৩৭ বিলিয়ন ডলার থেকে ৪৪১ বিলিয়ন ডলারে।

প্রভাব পড়েছে ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গের মোট সম্পদের ওপর। শুধু এ কেলেঙ্কারির জেরে জাকারবার্গ হারিয়েছেন ৭০০ কোটি মার্কিন ডলারের বেশি অর্থ।

মার্কিন সাময়িকী ফোর্বস-এর শীর্ষ ধনীর তালিকায় ৭ হাজার ১০০ কোটি ডলার নিয়ে গত সপ্তাহেও তাঁর অবস্থান ছিল পাঁচ নম্বরে। এ সপ্তাহে ৬ হাজার ৫০০ কোটি ডলার নিয়ে তিনি নেমে গেছেন সাত নম্বরে। ব্লুমবার্গের শীর্ষ ধনীর তালিকাতেও একই দশা হয়েছে ফেসবুকের প্রধান নির্বাহীর।

ফেসবুক থেকে কাগজে-কলমে মাত্র এক ডলার বেতন নিলেও প্রতিষ্ঠানটিতে তাঁর শেয়ারের পরিমাণ ৪০ কোটি ৩০ লাখ, যা ফেসবুকের মোট শেয়ারের ১৬ শতাংশ। তথ্য চুরির কেলেঙ্কারির ঘটনা সামনে আসার পর কমতে শুরু করে ফেসবুকের শেয়ারের দাম।

মূলত নতুন করে আতঙ্কা দেখা দিয়েছে মার্কিন ট্রেড কমিশনের তদন্তে কী বার্তা বেরিয়ে আসে- তাকে ঘিরে। কারণ সংস্থাটি ব্যবহারকারীদের ডেটা কীভাবে ব্যবহার করা হয় আর তার সুরক্ষায় ফেসবুক কী করে তা নিয়ে তদন্তের ঘোষণা দিয়েছে।

অথচ, এক সপ্তাহ আগে ফেসবুক নিয়ে তদন্তের বিষয়টি নিশ্চিত করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল কমিশন।

আর নতুন করে তদন্তের ঘোষণার পর আরও বেকায়দায় পড়ছে ফেসবুক। শেয়ারের দর আরও নিচের দিকে যাচ্ছে। ২০১২ সালের পর শেয়ারবাজারে সবচেয়ে বড় বেগ পোহাচ্ছে এখন ফেসবুক। 

সংবাদ মাধ্যম কোয়ার্টজ বলছে, ফেসবুক আইন লঙ্ঘন করে যদি সত্যিই ব্যবহারকারীর তথ্য পাচার করে থাকে, তবে মাধ্যমটিকে প্রতি ভুলের জন্য ৪০ হাজার ডলার জরিমানা দিতে হবে। 

আরও পড়ুন:

এসআর/সি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়