• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটের ব্যয় বেড়েছে ৩৯০ কোটি টাকা

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২০ মার্চ ২০১৮, ১৮:৫০ | আপডেট : ২০ মার্চ ২০১৮, ১৯:০৪
শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রকল্প ব্যয় ৩৯০ কোটি ৪১ লাখ বাড়িয়ে ৯১২ কোটি ৮০ লাখ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রকল্পটি ৫২২ কোটি ৩৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১৫ সালের ২৪ নভেম্বর একনেক সভায় অনুমোদন হয়। প্রকল্পটি জানুয়ারি ২০১৬ থেকে ডিসেম্বর ২০১৮ মেয়াদে বাস্তবায়নের কথা রয়েছে।

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়।

মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলনকক্ষে একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে একনেক সভায় প্রকল্পগুলোর অনুমোদন দেয়া হয়।

এদিকে পায়রা সমুদ্র বন্দরের অবকাঠামো উন্নয়নে সংশোধনী প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর ফলে পায়রা সমুদ্র বন্দরের ব্যয় বেড়েছে দ্বিগুণ। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৩৫০ কোটি ৫১ লাখ টাকা। ২০১৫ সালে অনুমোদনের সময় এর ব্যয় ধরা হয়েছিল ১ হাজার ১২৮ কোটি ৪৩ লাখ টাকা।
--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন: ইলেকট্রিক বাস চালু হচ্ছে কলকাতায়
--------------------------------------------------------

সভাশেষে পরিকল্পণামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল সাংবাদিকদের জানান, সভায় ৯ হাজার ৬৮০ কোটি ৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৬টি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে জিওবি (সরকারের নিজস্ব টাকা) ৯ হাজার ৫৯১ কোটি ৩ লাখ টাকা এবং সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে নেয়া হবে ৮৯ কোটি ২ লাখ টাকা।

সভায় অনুমোদন পাওয়া অন্য প্রকল্পগুলো হলো, সীমান্ত সড়ক নির্মাণ প্রকল্প (রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা) ১ হাজার ৬৯৯ কোটি ৮৫ লাখ টাকা, জেলা  মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ (ঢাকা জোন) ৫৫৮ কোটি ৪৪ লাখ টাকা, ভবের চর–গজারিয়া-মুন্সীগঞ্জ জেলা মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ প্রকল্প ৮০ কোটি ৬ লাখ টাকা, সিলেট সিটি করপোরেশনের অবকাঠামো নির্মাণ ৫৪৭ কোটি ২৮ লাখ, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা কার্যালয়ের ২০ তলা ভিত বিশিষ্ট দুইটি বেইজমেন্টসহ ১০ তলা (সংশোধিত ২০ তলা) প্রধান কার্যালয় নির্মাণ কাজ (১ম সংশোধিত) ২৪৯ কোটি ৫৯ লাখ টাকা প্রথমে ছিল ৮৭ কোটি ৯৯ লাখ, নোয়াখালী সদরে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য আবাসিক ভবন নির্মাণ ২১৯ কোটি ৫ লাখ টাকা, বাংলাদেশ ডাক অধিদপ্তরের সদর দপ্তর নির্মাণ (সংশোধিত) ৯১ কোটি ৯০ লাখ টাকা, প্রথমে ৫৪ কোটি ৭২ লাখ টাকা ব্যয় ধরা হয়েছিল, ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলাধীন তেতুঁলিয়া নদীর ভাঙন থেকে বকসী লঞ্চঘাট থেকে বাবুরহাট পর্যন্ত প্রতিরক্ষা ও ড্রেজিং এবং কুকরী–মুকরী দ্বীপ বন্যা নিয়ন্ত্রণ প্রকল্প ৫২৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা, বিএডিসি’র উদ্যান উন্নয়ন বিভাগের সক্ষমতা প্রকল্প বৃদ্ধির মাধ্যমে উদ্যান জাতীয় ফসল সরবরাহ ও পুষ্টি নিরাপত্তা উন্নয়ন প্রকল্প ১১০ কোটি ৫০ লাখ টাকা, এক্সপারশন অব ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স অ্যান্ড হসপিটাল প্রকল্প ৪২০ কোটি ৩৮ লাখ টাকা, বাংলাদেশ ভূমি জরিপ উন্নয়ন প্রকল্প ২৭৮ কোটি ৮৫ লাখ টাকা, বাংলাদেশ সরকারের জন্য নিরাপদ ই-মেইল ও ডিজিটাল লিটারেসি সেন্টার স্থাপন প্রকল্প ১১৬ কোটি ৩১ লাখ টাকা।

আরও পড়ুন: 

এমসি/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়