পোশাকশ্রমিকের সারাজীবনের আয় সিইও’র ৪ দিনের সমান

প্রকাশ | ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ১৮:২৬ | আপডেট: ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ২২:১০

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশের একজন পোশাকশ্রমিক সারাজীবনে যে অর্থ আয় করেন, তা বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় পাঁচটি ফ্যাশন ব্র্যান্ডের একজন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) মাত্র চার দিনের বেতনের সমান।

আন্তর্জাতিক বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা অক্সফাম আজ সোমবার এ তথ্য জানিয়েছে।

সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) বার্ষিক সম্মেলন উপলক্ষ্যে এক প্রতিবেদনে সংস্থাটি এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

প্রতিবেদনে বিশ্বব্যাপী সম্পদের বৈষম্যকে কড়া সমালোচনা করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বজুড়ে সম্পদের অসমতা বেড়েই চলেছে। শীর্ষধনী এক শতাংশ মানুষের হাতে এখন বিশ্বের ৮২ ভাগ সম্পদ রয়েছে। বর্তমানে বিশ্বে বিলিওনিয়ারের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। প্রতি দুই দিনে একজন করে মানুষ বিলিওনিয়ার হচ্ছেন।

অক্সফাম ইন্টারন্যাশনাল জানায়, ২০১০ সালের পর থেকে বিশ্বে গড়ে বিলিওনিয়ারদের সম্পদ বেড়েছে ১৩ শতাংশ হারে।

২০১৪ সালের তথ্য তুলে ধরে বাংলাদেশের পোশাকশ্রমিকদের আয় সম্পর্কে সেখানে বলা হয়, বাংলাদেশে তৈরি পোশাকশিল্পে যারা কাজ করেন তাদের মজুরি সবচেয়ে কম। তৈরি পোশাক উৎপাদনকারী সাতটি দেশের মধ্যে মজুরির দিক থেকে সবচেয়ে পিছিয়ে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশে বসবাসের জন্য শোভন মজুরি প্রয়োজন ২৫২ মার্কিন ডলারের সমান অর্থ। এর বিপরীতে বাংলাদেশের একজন শ্রমিক পান ৫০ ডলার।

ভারত ও শ্রীলঙ্কার শ্রমিকদেরও ন্যূনতম মজুরি ৫০ ডলার। তবে ভারতে শোভন জীবনযাপনের জন্য ২০০ ডলার এবং শ্রীলঙ্কায় ২৫০ ডলারের বেশি অর্থ দরকার হয়।

অক্সফামের বরাতে এবিসি নিউজের খবরে বলা হয়, বিশ্বের বড় পাঁচ ফ্যাশন কারখানার একজন প্রধান নির্বাহী চার দিনে যে অর্থ পান, তা বাংলাদেশের একজন পোশাকশ্রমিকের পুরো জীবনের আয়ের সমান।

সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক উইনি বিয়ানইয়ামা বলেন, শীর্ষধনীদের এই উত্থান বিশ্ব অর্থনীতির জন্য মোটেও সুখবর নয়, এটি বরং অর্থনৈতিক ব্যবস্থার পতনের লক্ষণ।

তিনি বলেন, যারা আমাদের পোশাক তৈরি করে, আমাদের মোবাইল ফোন তৈরি করে দেয়; আমাদের জন্য সস্তায় খাদ্যের যোগান দেয়, তারাই শোষিত হচ্ছে। বিপরীতে ফুলে ফেঁপে উঠছে শীর্ষধনীদের সম্পদ।   

আরও পড়ুন

এসআর/ এমকে