• ঢাকা রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫

কমতে পারে স্বর্ণের দর

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৫:৫৭ | আপডেট : ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৬:২৫
আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দর কমতে পারে। এরপর আবার দাম বাড়বে। ২০২০ সালের শেষ সময় পর্যন্ত এই ধারা অব্যহত থাকতে পারে। মার্কিন ব্যাংক ও বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান গোল্ডম্যান স্যাকসের বরাত দিয়ে এ পূর্বাভাস দিয়েছে কিটকো।

বিশ্বের বেশ কয়েকটি মূল্যবান পণ্যের বাজার বিশ্লেষণ করে খবর প্রকাশ করে অনলাইনটি।

খবরে বলা হয়, ২০১৮ সালের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে স্বর্ণের দর কমে দাঁড়াবে আউন্সপ্রতি (এক আউন্স সমান ২.৪৩ ভরি) এক হাজার ২০০ ডলারে। আর ২০২০ সালের শেষ দিকে তা বেড়ে দাঁড়াতে পারে এক হাজার ৩৭৫ ডলার পর্যন্ত।

আগামী বছরে কেন দর কমতে পারে- তার ব্যাখ্যায় গোল্ডম্যান স্যাকস জানিয়েছে, তারা স্বর্ণ আর ভার্চুয়াল মুদ্রা বিটকয়েনকে এখন আর এক মনে করেন না। ফলে বিটকয়েনের মূল্য যে হারে বাড়ছে, স্বর্ণের মূল্য সে হারে বাড়বে না।

এছাড়া মার্কিন কর সংস্কার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভের নতুন চেয়ারম্যান নিয়োগ বাজারে অস্থিরতা কেটে যাবে। ফলে সবচেয়ে নিরাপদ বিনিয়োগের পণ্য বলে খ্যাত স্বর্ণের দর এ সময় কমবে।

তবে ২০২০ সালের মধ্যে তা আবারো বেড়ে দাঁড়াবে। এক পর্যায়ে তা ১৩৫০ ডলারও ছাড়িয়ে যেতে পারে।

সাধারণত বাজারে অস্থিরতা বিরাজ করলেই মানুষের স্বর্ণের প্রতি ঝোঁক বাড়ে। আর অস্থিরতা কেটে গেলে বাজার পরিস্থিতিও চুপসে যায়।  

দর কেন বাড়তে পারে সেটির কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, ২০১৮-১৯ সালে তেমন কোনো অর্থনৈতিক মন্দা হবার কারণ নেই। যেসব অঞ্চলে ভূ-রাজনৈতিক অস্থিরতা কাজ করছে, তা শিথিল হওয়ারও কোনো সম্ভাবনা নেই। এছাড়া উন্নত দেশগুলোর মোট দেশজ উৎপাদন সন্তোষজনক ও ফেডারেল রিজার্ভের নতুন করে সুদহার বাড়ানোর সম্ভাবনায় ওই সময়ে পণ্যটির চাহিদা বেশি থাকবে। ফলে দরও বাড়বে।

গোল্ড প্রাইসের সর্বশেষ দর অনুযায়ী এখন আগামীতে সরবরাহ হতে যাওয়া এক আউন্স স্বর্ণ বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ২৭৫ ডলার। এর আগে ১২ ডিসেম্বর স্বর্ণের দাম চলতি মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থায় পৌঁছে। ওইদিন বিশ্ববাজারে পণ্যটি আউন্সপ্রতি ১ হাজার ২৪১ দশমিক ৭০ ডলারে লেনদেন হয়েছিল। তবে চলতি বছরে এ পর্যন্ত স্বর্ণের দাম ১০ শতাংশের বেশি বেড়েছে। গত সেপ্টেম্বর পণ্যটির দাম প্রায় ১৩৫০ ডলারের কাছাকাছি পৌঁছায়।

আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে স্বর্ণের দাম সমন্বয় করে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি- বাজুস। আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়লে দেশের বাজারেও স্বর্ণের দাম বাড়ায় বাজুস। আর কম থাকলে দাম কমানো হয়।

সে হিসেবে আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে বাংলাদেশের বাজারে স্বর্ণের দাম কমতে পারে।

বিশ্ববাজারে দাম কমার কারণে সর্বশেষ গেলো ১১ ডিসেম্বর দেশের বাজারে স্বর্ণের দর ভরিতে সর্বোচ্চ ১ হাজার ২৮৩ টাকা পর্যন্ত কমানো হয়।

আজ রোববার দেশের বাজারে প্রতি ভরি ২২ ক্যারেট স্বর্ণ ৪৭ হাজার ৯৩৯ টাকা, ২১ ক্যারেট ৪৫ হাজার ৭২৩ টাকা এবং ১৮ ক্যারেট স্বর্ণ বিক্রি হচ্ছে ৪০ হাজার ৪৭৪ টাকায়।

এসআর/এ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়