৬ বছরে জিডিপি দ্বিগুণ

প্রকাশ | ০২ ডিসেম্বর ২০১৭, ১২:৫৭ | আপডেট: ০২ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৫:২৩

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে গেলো ছয় বছরে দেশের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) দ্বিগুণ হয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশ একটি চিত্তাকর্ষক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে সক্ষম হয়েছে। জানালেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু।

তিনি বলেন, ২০১০ সালে বাংলাদেশের জিডিপির পরিমাণ ছিল ১০২.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৬ সালে সেটি বেড়ে ২২১.৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে। 

শুক্রবার  ভারতে ‘ওয়ার্ল্ড অ্যাসোসিয়েশন ফর স্মল অ্যান্ড মিডিয়াম এন্টারপ্রাইজেজ’ আয়োজিত ‘বৈশ্বিক মানোন্নয়ন প্রক্রিয়ায় এসএমই খাতকে একীভূতকরণ : চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক সেশনে তিনি এসব কথা বলেন।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার বাংলাদেশের এসএমই খাতে ভ্যালু চেইন উন্নয়নের মাধ্যমে জাতীয় প্রবৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান বৃদ্ধির কৌশল গ্রহণ করেছে।

তিনি বলেন, এসএমই শিল্প খাত জিডিপি প্রবৃদ্ধির শতকরা ২৫ ভাগ, শিল্প কর্মসংস্থানের শতকরা প্রায় ৮৫ ভাগ এবং গৃহস্থালি আয়ের শতকরা ৭৫ ভাগ যোগান দিয়ে থাকে।

‘বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে এসএমই খাত মূল চালিকাশক্তি হিসেবে অবদান রাখছে। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ১০ লাখ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প রয়েছে, যেগুলো জিডিপি প্রবৃদ্ধি, কর্মসংস্থান ও দারিদ্র্য বিমোচনে ভূমিকা রাখছে। দেশের শিল্প উদ্যোগ ও ব্যবসার প্রায় শতকরা ৯০ ভাগ এসএমই খাতের আওতাভুক্ত’।

দ্রুত ও টেকসই শিল্পায়নের লক্ষ্য অর্জনে বৈশ্বিক ভ্যালু চেইনে এসএমই খাতকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে বলে উল্লেখ করেন শিল্পমন্ত্রী।

দুই দিনব্যাপী আয়োজিত ‘২১তম আন্তর্জাতিক ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প সম্মেলন’ উপলক্ষে নয়াদিল্লির ইন্ডিয়া হ্যাবিটেট সেন্টারে এ অধিবেশনের আয়োজন করা হয়।

ভারতের ন্যাশনাল রিসার্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন-এর চেয়ারম্যান ড. এইচ. পুরুশুথামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিভিন্ন দেশের ব্যবসায়িক নেতা, এসএমই শিল্প উদ্যোক্তা, ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী, ব্যাংকার, থিংকট্যাংক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা আলোচনায় অংশ নেন।

এসআর/এ