• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

সেরা করদাতা হলেন যারা

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০২ নভেম্বর ২০১৭, ১২:৪৪
প্রতিবারের মতো এবারো সেরা করদাতাদের নাম প্রকাশ করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এসব করদাতাকে বিশেষ সম্মাননা হিসেবে  ‘ট্যাক্স কার্ড’ প্রদান করা হবে। করদাতাদের উৎসাহ ও ২০১৬-১৭ অর্থবছরে সর্বোচ্চ কর প্রদানের স্বীকৃতি হিসেবে ৩ ক্যাটাগরিতে এবার মোট ১৪১ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে এ সম্মাননা দেয়া হচ্ছে।  এর মধ্য ব্যক্তি শ্রেণিতে ৭৬ জন, কোম্পানি শ্রেণিতে ৫৫ ও অন্যান্য শ্রেণিতে ১০ করদাতাকে মনোনীত করা হয়েছে। 

অর্থ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের উপ-সচিব সুরাইয়া পারভীন শেলী স্বাক্ষরিত ট্যাক্স কার্ড প্রাপ্তদের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

এ বছর চিকিৎসকদের মধ্যে সেরা করদাতা হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্জারির অধ্যাপক ডা. এ কে এম ফজলুল হক। বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত গেলো ১০ বছর ধরে এই স্থান ধরে রেখেছিলেন। 

অভিনেতা-অভিনেত্রী ক্যাটাগরিতে গতবার সেরা করদাতা হয়েছিলেন সুবর্ণা মুস্তাফা। এবার এ জায়গা দখল করেছেন প্রয়াত সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন। 

কণ্ঠশিল্পীদের মধ্যে এবার সেরা করদাতা নির্বাচিত হয়েছেন রুনা লায়লা। গতবারের চেয়ে বেশি আয়কর দিয়ে বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার ক্রিকেটার সাকিব আল হাসানকে পেছনে ফেলেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। তবে এ শ্রেণি সেরা করদাতা হয়েছে তামিম ইকবাল। 

বিভিন্ন পেশাজীবীদের মধ্য থেকে সেরা করদাতাদের চিহ্নিত করে গত সোমবার গেজেট জারি করে এনবিআর। 

পেশার বাইরে বিশেষ শ্রেণি ও বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে সেরা করদাতা প্রতিষ্ঠানও জায়গা পেয়েছে তাতে। গেজেট অনুযায়ী, আইনজীবীদের মধ্যে গতবারের মতো এবারো সেরা করদাতা সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। এই শ্রেণিতে অন্য সেরা করদাতারা হলেন অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম, আহসানুল করিম, কাজী মোহাম্মদ তানজীবুল আলম ও মুহাম্মদ কবির উজ্জামান ইয়াকুব।

সাংবাদিকদের মধ্যে সেরা করদাতা নির্বাচিত হয়েছেন ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহ্ফুজ আনাম। পরের অবস্থানে রয়েছেন চট্টগ্রামের সাংবাদিক মোহাম্মদ আবদুল মালেক, দৈনিক প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান, চ্যানেল আইয়ের বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ এবং দৈনিক সমকালের সম্পাদক গোলাম সারওয়ার।

অভিনেতা-অভিনেত্রী ক্যাটাগরিতে এ বছর সেরা করদাতা হয়েছেন অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন। দ্বিতীয় সেরা করদাতা হয়েছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্রের অন্যতম সেরা অভিনেতা শাকিব খান রানা। পরের অবস্থানে রয়েছেন অভিনেতা জাহিদ হাসান। 

গায়ক-গায়িকাদের মধ্যে এবার সেরা করদাতা হয়েছেন উপমহাদেশের বিখ্যাত কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লা। পরের অবস্থানে রয়েছেন এস ডি রুবেল ও রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। 

সিনিয়র সিটিজেন : বিশেষ শ্রেণি হিসেবে সিনিয়র সিটিজেনদের মধ্য থেকে সেরা করদাতা হয়েছেন স্কয়ার গ্রুপের চেয়ারম্যান স্যামুয়েল এস চৌধুরী, নারায়ণগঞ্জের সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী, চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী আলী হোসাইন আকবর আলী, স্যামসন এইচ চৌধুরীর স্ত্রী অনিতা চৌধুরী ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এম আনিস-উদ-দৌল্লা।

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা : গেজেটভুক্ত যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে সেরা করদাতা হয়েছেন আবু সালেহ্ মোহাম্মদ নাসিম, মো. আবদুল ওহাব, মো. নাসির উদ্দিন মৃধা, এস এম আবদুল ওয়াহাব ও মো. আবুল খায়ের।
প্রতিবন্ধী : প্রতিবন্ধী ক্যাটাগরিতে সেরা করদাতা হয়েছেন আকরাম মাহমুদ, ডা. মো. মামুনুর রশিদ ও ডা. মো. জহিরুল ইসলাম।

মহিলা : মহিলা ক্যাটাগরিতে সেরা করদাতা হয়েছেন লায়লা হোসেন, হোসনে আরা হোসেন, বুলা চৌধুরী, নিশাত ফারজানা চৌধুরী ও পারভীন হাসান।

তরুণ করদাতা : ৪০ বছরের নিচের করদাতাদের তরুণ করদাতা হিসেবে চিহ্নিত করেছে এনবিআর। তাদের মধ্যে সেরা করদাতা হয়েছেন রাজধানীর শাহজাদপুরের কনফিডেন্স সেন্টারের নাফিস শিকদার। এ ছাড়া রূপগঞ্জের রূপসী এলাকার গাজী গোলাম মূর্তজা, ঢাকার মৌলভীবাজারের মো. শাহনেওয়াজ, সিলেটের এ কে এম আতাউল করিম এবং চট্টগ্রামের সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর।

ব্যবসায়ী : সেরা করদাতা হয়েছেন জর্দা ব্যবসায়ী হাজি মো. কাউছ মিয়া। পরের অবস্থানে রয়েছেন নরসিংদীর ব্যবসায়ী আব্দুল কাদির মোল্লা, গুলশানের খন্দকার বদরুল আহসান, মতিঝিলের কামরুল আশরাফ খান এবং চট্টগ্রামের মোহাম্মদ কামাল।

বেতনভোগী : চাকরিজীবীদের মধ্যে সেরা করদাতা হয়েছেন ঢাকা সেনানিবাসের মোহাম্মদ ইউসুফ, রুবাইয়াত ফারজানা হোসেন, খাজা তাজমহল, উত্তরার এম এ হায়দার হোসেন এবং গুলশানের আব্দুল মুক্তাদির।

প্রকৌশলী : চট্টগ্রামের আবুল খায়ের স্টিল মিলসের শ্যামল কান্তি ঘোষ, ঢাকার তেজগাঁওয়ের মো. কবির আহমেদ ভূইয়া ও চট্টগ্রামের চট্টেশ্বরী সার্কেলের এস এম আবু সুফিয়ান।

স্থপতি : ঢাকার মোহাম্মদপুরের মো. রফিক আজম, মনিপুরীপাড়ার মো. ইকবাল হাবিব এবং গুলশানের এনামুল করিম নির্ঝর।

অ্যাকাউন্ট্যান্ট : বনানীর মো. মোক্তার হোসেন, মো. জয়নুল আবেদীন এবং লালবাগের মনজুর আলম।

নতুন করদাতা : গুলশানের সিলভানা সিনহা, তানিয়া কাদের সিনহা, দক্ষিণ শাহজাহানপুরের নাবিলা মির্জা, চট্টগ্রামের সৈয়দ মোহাম্মদ তাহমির, মৌলভীবাজারের ছয়ফুল মিয়া, সিলেটের মো. শাহরব মিয়া এবং যশোরের সুহিতা আসরাফি।

অন্যান্য : এমএস স্পিনিংয়ের এম সাহাবুদ্দিন আহমেদ, এক্সিম ব্যাংকের চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম মজুমদার এবং চট্টগ্রামের বাটালি হিলসের আবু মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন খান।

ব্যাংকিং খাত : ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক, দ্য হংকং অ্যান্ড সাংহাই ব্যাংকিং করপোরেশন (এইচএসবিসি), ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক ও ডাচ্-বাংলা ব্যাংক।

ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান : আইডিএলসি ফাইন্যান্স, বাংলাদেশ ইনফ্রাস্ট্রাকচার ফাইন্যান্স ফান্ড, উত্তরা ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্টস ও ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি।

টেলিকমিউনিকেশন : গ্রামীণফোন।

প্রকৌশল : বিএসআরএম স্টিলস, নাভানা ও পিএইচপি এবং কন্টিনিউয়াস গ্যালভানাইজিং মিলস।

খাদ্য ও আনুষঙ্গিক : নেসলে বাংলাদেশ, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ এবং স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজ।

জ্বালানি ক্যাটাগরি : তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি, সিলেট গ্যাস ফিল্ড ও বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানি।

পাটশিল্প : জনতা জুট মিলস, সুপার জুট মিলস ও টিমেক্স জুট মিলস।

স্পিনিং ও টেক্সটাইল : কোটস বাংলাদেশ, স্কয়ার টেক্সটাইলস, অ্যাপেক্স টেক্সটাইলস প্রিন্টিং মিলস, এনভয় টেক্সটাইলস, জিএমএস কম্পোজিট নিটিং ইন্ডাস্ট্রিজ, বাদশা টেক্সটাইলস ও হামিদ উইভিং মিলস।

ওষুধ ও রসায়ন : ইউনিলিভার বাংলাদেশ, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, কর্ণফুলী ফার্টিলাইজার কোম্পানি, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস।

প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া : মিডিয়া স্টার, ট্রান্সক্রাফট, মিডিয়া ওয়ার্ল্ড ও ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ।

রিয়েল এস্টেট : বে ডেভেলপমেন্টস, স্পেস জিরো ও স্যানমার প্রপার্টিজ।

তৈরি পোশাক : দ্যাটস ইট স্পোর্টস ওয়্যার, রিফাত গার্মেন্টস, কেডিএস গার্মেন্টস ইন্ডাস্ট্রিজ, অনন্ত অ্যাপারেলস, প্যাসিফিক জিন্স, রিং শাইন টেক্সটাইলস ও অ্যাপেক্স ল্যানজারি।

চামড়াশিল্প : বাটা সু কোম্পানি (বাংলাদেশ), অ্যাপেক্স ট্যানারি ও লালমাই ফুটওয়্যার।

অন্যান্য : ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশ কোম্পানি, আমেরিকান লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানি, দ্য সিকিউরিটি প্রিন্টিং করপোরেশন ও এমজেএল বাংলাদেশ।

ফার্ম : ওয়ালটন মাইক্রোটেক করপোরেশন, ওয়ালটন প্লাজা, মাস্টারমাইন্ড ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল ও মেসার্স এএসবিএস।
ব্যক্তি ও সংঘ : আশা, ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি।

অন্যান্য : ব্যুরো বাংলাদেশ, গ্রামসিকো, কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট সেন্টার (কোডেক) ও ইন্টিগ্রেটেড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন।

এসআর

 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়