• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

বৃষ্টির অজুহাতে কাঁচামালের দাম বাড়াচ্ছে খুচরা বিক্রেতারা

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২২ অক্টোবর ২০১৭, ০৮:৩৬ | আপডেট : ২২ অক্টোবর ২০১৭, ১১:১১
স্থল নিম্নচাপের প্রভাবে বৃহস্পতিবার থেকে ঝরছে বৃষ্টি। এতে সরবরাহ কম অজুহাতে রাজধানীর কাঁচাবাজার গুলোতে সবজির দাম বেড়েছে প্রায় দিগুণ। গেলো বুধবার যে সবজি ৫০ থেকে ৬০ টাকা পাওয়া যেত, সে সবজি এখন প্রায় ৮০ থেকে ১শ টাকা। গতকাল শনিবার ফকিরাপুল, কাঁঠালবাগান ও খিলগাঁও কাঁচাবাজার ঘুরে এ চিত্র পাওয়া যায়।  

ব্যবসায়ীরা জানালেন, বৃষ্টির কারণে আড়তে সবজির সরবরাহ খুবই কম। তাই বেশি দামে সবজি কিনে আনতে হচ্ছে। ফলে বেশি দামে সবজি বিক্রি করতে হচ্ছে। কিন্তু বাস্তবে ব্যবসায়ীদের কথার মিল পাওয়া গেল না রাজধানীর কারওয়ান বাজার ঘুরে। 

বাজার ঘুরে দেখা যায়, আড়তে প্রচুর পরিমাণ পণ্য বস্তায় বস্তায় পড়ে রয়েছে। উল্টো বস্তায় থাকা সবজিগুলো পচার আশঙ্কায় কম দামে ছেড়ে দিচ্ছে আড়তদার। 

আড়তদার রহিম ট্রেডার্সের সত্ত্বাধিকারী রহিম সরকার জানান, শুক্রবার রাতে প্রতিদিনের মতো পণ্য নিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সবজি এসেছে। বিক্রির আশায় আমরাও মাল মজুদ করেছি। কিন্তু সেভাবে পণ্য বিক্রি হয়নি। ফলে অবিক্রীত অনেক মালমাল মজুদ করে রেখেছি। যদি পণ্যগুলো না পচে তাহলে (শনিবার) রাতে নতুন পণ্যের সঙ্গে কম দামে বিক্রি করে দিব। 

এদিকে ফকিরাপুল, কাঁঠালবাগান ও খিলগাঁও কাঁচাবাজারে দেখা যায়, প্রতিকেজি টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা কেজি দরে। শুক্রবার যা বিক্রি হয়েছে ১২০ থেকে ১৩০ টাকা। প্রতিকেজি শিম বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা কেজি দরে। যা শুক্রবার বিক্রি হয়েছিল ১০০ থেকে ১২০ টাকায়। 

এছাড়া পটল, ঝিঙা, করলা, ঢেঁড়স, ধুন্দুল, বেগুন, করলা বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে। যা শুক্রবার বিক্রি হয়েছিল ৪০ থেকে ৫০ টাকা দরে। ফুলকপি প্রতিটি ৩০ থেকে ৪০ টাকা, বাঁধাকপি ২০ থেকে ৩০ টাকা, গাজর ৮০ থেকে ১২০ টাকা, মূলা ৬০ থেকে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।  

এদিকে কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকা, যা শুক্রবার বিক্রি হয়েছিল ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা। এছাড়া পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৫ থেকে ৫৫ টাকা, যা শুক্রবার ছিল ৪০ থেকে ৪৫ টাকায়। 

রামপুরা ফকিরাপুল বাজারে সবজি কিনতে আসেন আরামবাগের বাসিন্দা মাসুদুর রহমান। তিনি আরটিভি অনলাইনকে বলেন, সবজির দাম বেশ চড়া। এভাবে আর কত দিন। চালের দাম বাড়তি, বাসা ভাড়া বাড়তি, গ্যাস-বিদ্যুৎ সব কিছুর দাম বেড়েছে। এতো কিছুর পর সবজির বাজারে যে হারে দাম বাড়ছে তাতে আমরা মধ্যম আয়ের মানুষ হিমশিম খাচ্ছি। যাদের অবস্থা আমাদের থেকে খারাপ, তারা কিভাবে দিন কাটাচ্ছে জানি না।  

খিলগাঁও কাঁচাবাজারে বাজার করতে এসেছেন মিজানুর রহমান। তিনি শাক কিনতে গিয়ে রীতিমত তর্কাতর্কি করছিলেন। বাজার সম্পর্কে তার কাছে জানতে চাইলে রীতিমত অভিমানের সুরে বললেন, ভাই আপনারা রিপোর্ট করছ্নে আমরা দেখছি, পড়ছি। কিন্তু এতো কিছুর পরও দাম কমছে? মূলত সরকারের তদারকির অভাবে এরা সিন্ডিকেটে মালামাল বিক্রি করছে। কারণ জানতে চাইলে একেক দিন একেক অজুহাত। কোন কিছু না পাইলে সরবরাহের অজুহাত। বাজারে যদি সরবরাহ না থাকতো, তাহলে এতো মালামাল দোকানে দেখা যায় কিভাবে? গিয়ে দেখেন সিটি করপোরেশনের একটি চার্ট আছে। তাতে যা ইচ্ছে দাম লেখা হয় যাতে বাস্তবের সঙ্গে অমিল। 

এদিকে বাজারে সাদা ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকা কেজিতে। যা  শুক্রবার ছিল ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা। লাল লেয়ার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা থেকে ১৬৫ টাকা কেজি দরে। যা শুক্রবার ছিল ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা কেজি। প্রতি কেজি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫১০ টাকা থেকে ৫২০ টাকায়। যা শুক্রবার ছিল ৫০০ টাকা। তবে আগের মতোই স্থির আছে খাসির মাংসের দাম। প্রতি কেজি খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকায়।

এমসি/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়