• ঢাকা বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

দাবি না মানলে রমজানে কর্মবিরতিতে যাবে মাংস ব্যবসায়ীরা

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ৩০ এপ্রিল ২০১৭, ১৫:৩৩ | আপডেট : ৩০ এপ্রিল ২০১৭, ১৬:৫৪
১৫ দিনের মধ্যে আলোচনায় না বসলে পহেলা রমজান থেকে কর্মবিরতি পালন করা হবে। দাবি পূরণ না হল কর্মবিরতি ধর্মঘটে রূপ নিতে পারে। বললেন ঢাকা মেট্রোপলিটন মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম।

রোববার সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ হুমকি দেন। রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন হয়েছে। 

রবিউল আলম বলেন, পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে গেছে যে, আন্দোলনের বিকল্প নেই। দাম বেশি হওয়ায় গরু ও খাসির মাংস খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন সাধারণ মানুষ। ফলে মাংস বিক্রি কমে গেছে। রাজধানীতে প্রায় ৬০ শতাংশ মাংসের দোকান বন্ধ হয়ে গেছে। ঢাকায় প্রায় ৫ হাজার মাংসের দোকান ছিল। এছাড়া সারাদেশে মাংসের দোকানের সংখ্যা প্রায় এক লাখ।

তিনি বলেন, কয়েকটি ইস্যুতে আলোচনা করতে আমরা গেলো ১৫ এপ্রিল স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের দুই মেয়রকে চিঠি দিয়েছি। আমরা কিছু বিষয়ে সমাধান চাই। যেটা হলে আরো কম দামে মাংস বিক্রি করতে পারবো। 

রবিউল আলম বলেন, দাবির মধ্যে আছে, খাজনা কমানো, চাঁদাবাজি বন্ধ করা, চামড়া বিক্রির ব্যবস্থা করা, ডিএসসিসিতে স্থায়ী পশুর হাট তৈরি, মানসম্মত একাধিক কসাইখানা তৈরি ইত্যাদি। 

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে ট্যানারি বন্ধ হওয়ায় চামড়া বিক্রি হচ্ছে না। বিভিন্ন বাজারে নির্দিষ্ট জবাইখানা না থাকায় যত্রতত্র গরু-ছাগল জবাই করা হচ্ছে। ফলে পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে। 

এর আগে গেলো ১৩ থেকে ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ছয় দিনের কর্মবিরতি পালন করেছিলেন মাংস ব্যবসায়ীরা। কর্মবিরতির পর থেকে গরুর মাংসের দাম ৪০০ টাকা থেকে বেড়ে ৪৮০ থেকে ৫০০ এবং খাসির দাম ৬৫০ টাকা বেড়ে ৭২০-৭৫০ টাকায় বিক্রি হয়ে আসছে। 

এমসি/এইচএম  

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়