close
ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৭ | ০৮ কার্তিক ১৪২৪

প্রধানমন্ত্রী কি হীরার একার : সালমান শাহ’র মা

হোসাইন তারেক
|  ০৮ আগস্ট ২০১৭, ১৩:৩৪ | আপডেট : ০৮ আগস্ট ২০১৭, ২০:১৪
দীর্ঘ ২১ বছর পর ফের আলোচনায় প্রয়াত নায়ক সালমান শাহ’র মৃত্যুর ঘটনা। সোমবার হঠাৎ আলোচিত এ মামলার অন্যতম আসামি রুবির ভিডিও বার্তার কারণে বিষয়টি হয়ে ওঠে টক অব দ্য কান্ট্রি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রুবির ভিডিও বার্তাটি ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি সবার নজরে আসে। সেখানে দাবি করা হয় সালমান শাহকে খুন করা হয়েছে। এর কিছু সময় পর নিজের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে রুবির বক্তব্য সমর্থন করে স্ট্যাটাস দেন সালমান শাহর মা নীলা চৌধুরী।

অন্যদিকে রুবিকে মানসিক রোগী বলেন সালমান শাহর শ্বশুর শফিকুল হক হীরা। তিনি বলেন, আমি কেমন মানুষ প্রধানমন্ত্রী ভালো করে জানেন। তিনি আমার সম্পর্কে অবগত আছেন।

শফিকুল হক হীরা বলেন, ‘ভিডিও প্রকাশকারী রুবিকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত বলে আমি মনে করি। ভিডিওটি আমিও দেখেছি। এটা খুবই হাস্যকর লেগেছে আমার কাছে। আমি জেনেছি রুবি তার স্বামীর সঙ্গে নেই। তাদের ডিভোর্স হয়েছে। শেষ বয়সে অর্থকড়ির ঝামেলায় আছেন হয়তো। কারণ ডিভোর্সের সময় স্বামীর কাছ থেকে টাকা নিতে পারেননি, তার ও পুত্রের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে পারেননি। এজন্য মাথা হয়তো বিগড়ে গেছে। কিন্তু তার দায় তো দেশ ও জাতি নেবে না।’

তিনি বলেন, রুবি নিঃস্ব অবস্থায় আছেন। তাই মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে যা খুশি তাই করছেন। হয়তো সালমানের মা তাকে টাকার লোভ দেখিয়ে থাকতে পারেন। সেজন্যই একটা পুরনো ইস্যুকে নতুন করে রঙ মাখিয়ে হাজির করেছেন।

এসব বিষয় নিয়ে আরটিভি অনলাইনের কথা হয় লন্ডনে বসবাসরত সালমান শাহের মা নীলা চৌধুরীর সঙ্গে। তিনি আরটিভি অনলাইনকে বলেন, সালমান শাহর শ্বশুর শফিকুল হক হীরা বলেছেন ‘প্রধানমন্ত্রী তার সম্পর্কে ভালো জানেন।’ তাহলে প্রধানমন্ত্রী কি শুধু মাত্র তার একার? নাকি তিনি দেশের ১৬ কোটি মানুষের?

নীলা চৌধুরী বলেন, হীরা কেন প্রধানমন্ত্রীকে কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন? প্রধানমন্ত্রী তার সম্পর্কে সব জানেন বলে তিনি কি বোঝাতে চেয়েছেন? আমরা কি ধরে নেবে? তাহলে কি আমার ছেলের মামলার বিষয় ফের ধামাচাপা পড়ে যাচ্ছে? ভেতরে ভেতরে কি সব কিছু ম্যানেজ হয়ে যাচ্ছে?

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যার প্রতি আমার এবং দেশের ১৬ কোটি মানুষের আস্থা আছে। তিনি সব সময় অপরাধীকে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করেছেন। আমার ছেলে হত্যার বিচারও তার সরকারের সময় হবে।

এছাড়াও সালমান শাহকে প্রতি মাসে টাকা দিতেন বলে হীরা যে দাবি করেছেন তারও সমালোচনা করেছেন নীলা চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘কেউ বিশ্বাস করবে সামিরার বাবা আমার ছেলেকে প্রতিমাসে ৬০-৭০ হাজার টাকা দিতেন? একটা মানুষ কতটা নিচু হলে এমন কথা বলতে পারেন?’ 

নীলা চৌধুরী বলেন, রুবির স্বীকারোক্তির পর হীরার বক্তব্য প্রমাণ করে তিনি এটিকে ভিন্ন দিকে নিয়ে যেতে চান। আমি প্রধানমন্ত্রীসহ দেশের সবার কাছে অনুরোধ করবো সালমান হত্যা মামলার সব আসামিকে আইনের আওতায় আনা হোক।

তিনি বলেন, রুবি সালমান হত্যা মামলার আসামি, এতোদিন পরে এসে তিনি নিজেই খুনের কথা স্বীকার করেছেন। কিন্তু গেলো একমাস আগেও এই রুবি আমাকে গালাগাল দিয়েছেন। আজ তিনি নিজেই কিভাবে সালমানকে হত্যা করা হয়েছে তা বলেছেন। কারা এর সঙ্গে জড়িত সব স্বীকার করেছেন। এটিকে যেনো প্রমাণ হিসেবে গ্রহণ করা হয়।

সালমান শাহর মা বলেন, সত্য কখনো চাপা থাকে না। ২১ বছর পর আসামি নিজেই স্বীকার করেছেন সালমান খুন হয়েছে। এটি আল্লাহর কুদরতেই সম্ভব হয়েছে। খুনিরাই নিজেদের অপরাধ স্বীকার করেছেন।

তিনি এ মামলার আসামিদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান। একই সঙ্গে সালমান হত্যায় যে অপমৃত্যু মামলা হয়েছে সেটিকে হত্যা মামলা হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করারও দাবি জানান।

১৯৯২ সালে ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ ছবির মাধ্যমে সালমান শাহ রূপালি পর্দায় যাত্রা শুরু করেছিলেন। চার বছরের ক্যারিয়ারে তিনি মোট ২৭টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। যার প্রতিটিই দর্শকপ্রিয়তা পায়।

সালমান শাহ মৃত্যুর পর তার মা নীলা চৌধুরী ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলাও করেছিলেন। এতে সামিরা ছাড়াও আসামি ছিলেন চলচ্চিত্র প্রযোজক আজিজ মোহাম্মদ ভাই। রাবেয়া সুলতানা রুবি ছিলেন ওই মামলার ৭ নম্বর আসামি। রুবি সালমানের মামী শাশুড়ী।

পুলিশ দু’ দফা ময়নাতদন্ত করে সালমান শাহর মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলেছিল। কিন্তু নারাজি আবেদন করেছে সালমান শাহের পরিবার। মামলাটির বিচার বিভাগীয় তদন্তও হয়েছিল। এখন মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআইয়ে রয়েছে। সম্প্রতি মামলাটি ফের পুনরুজ্জীবিত করা হয়েছে। 

 

 

এইচটি/এইচএম/জেএইচ

 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়