• ঢাকা শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫

বাসের ধাক্কায় নিহত শিশু আকিফা মৃত্যু মামলায় হত্যার ধারা যুক্ত করার নির্দেশ

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
|  ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:০৭ | আপডেট : ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৪৩
কুষ্টিয়ায় মায়ের কোল থেকে ছিটকে পড়ে শিশু আকিফা নিহতের আলোচিত ঘটনায় ধাক্কা দেয়া সেই বাসের মালিক ও মল আসামি চালকের জামিন দেয়ার একদিন পর তা আবার বাতিল করা হয়েছে। সেসঙ্গে আসামিদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এছাড়া নিহত শিশু আকিফার বাবার দায়ের করা মামলাটি হত্যা মামলা হিসেবে ৩০২ ধারা সংযুক্তিরও আদেশ দেওয়া হয়।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে কুষ্টিয়ার সিনিয়র বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক এম এম মোর্শেদ এসব আদেশ দেন।

আদালত সূত্র জানায়, আজ মঙ্গলবার সকালে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মডেল থানার উপ পরিদর্শক সুমন কাদেরী তদন্ত শেষে দুপুরে আকিফার বাবার দায়ের করা বহুল আলোচিত মামলায় ২৭৯/৩০৪/৩৩৮ ধারার সঙ্গে ৩০২ ধারা অর্থাৎ হত্যা মামলা হিসেবে গ্রহণ করার আবেদন জানান। যুক্তি শুনে বিচারক আবেদনটি মঞ্জুর করে ৩০২ ধারা সংযুক্ত করার আদেশ দেন। যেহেতু পরিবর্তিত মামলা জামিন অযোগ্য তাই কুষ্টিয়া সিনিয়র বিচারিক হাকিম আদালতের জিআরও আজাহার উদ্দিন জামিন পাওয়া বাসের চালক মহিদ মিয়া ওরফে খোকন ও বাসের মালিক জয়নাল আবেদীনের জামিন বাতিল চেয়ে আরও একটি আবেদন করেন। আদালত উক্ত আবেদনটিকেও আমলে নেন এবং আসামিদের জামিন বাতিল করে তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। 

এর আগে একই আদালত গত সোমবার বাসের মালিক ও চালককে জামিন দিয়েছিলেন। ওই দিন বেলা পৌনে ১২টায় গ্রেপ্তারকৃত বাসের মালিক জয়নাল আবেদীনকে আদালতে হাজির করলে একই সময় বাসের চালক মূল আসামি খোকন আদালতে আত্মসমর্পণ করলে আদালত তাদের জামিন দেন।  

উল্লেখ্য, গেল ২৮ আগস্ট কুষ্টিয়ার চৌড়হাস মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকা ফয়সাল গঞ্জেরাজ নামে বাসের সামনে দিয়ে এক বছরের শিশুকন্যা আকিফাকে কোলে নিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন মা রিনা বেগম। হঠাৎ চালক বাসটি চালিয়ে রিনা বেগমকে পেছন থেকে ধাক্কা দেন। এতে মায়ের কোল থেকে রাস্তার ওপর ছিটকে পড়ে গুরুতর আহত হয় শিশু আকিফা। প্রথমে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেলে আনা হয় তাকে। তবে শেষ পর্যন্ত তাকে বাঁচানো যায়নি। ২৯ আগস্ট রাতে শিশু আকিফার বাবা হারুন অর রশিদ কুষ্টিয়া মডেল থানায় বাস চালক, হেলপার ও মালিকের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

আরও পড়ুন : 

 

এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়