• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

শিপইয়ার্ডে অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে দুই বিদেশি নাগরিকসহ আটক ৪

সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
|  ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৭:৫৪ | আপডেট : ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:১০
চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের শিপইয়ার্ডে বিনা অনুমতিতে অনুপ্রবেশের অভিযোগে দুই বিদেশি নাগরিকসহ চারজনকে আটক করেছে কারখানা কর্তৃপক্ষ।

এদিকে ইয়ার্ডগুলোতে বিনা অনুমতিতে অনুপ্রবেশে সহযোগিতা করায় সোমবার সকালে উপজেলার কুমিরা জেলেপাড়া এলাকা থেকে মতিলাল জলদাস নামে এক যুবককে আটক করেছে। সে বিদেশি নাগরিকদের জাহাজভাঙা ইয়ার্ডে অনুপ্রবেশ সহযোগিতা করতো।

গতকাল রোববার উপজেলার কদমরসুল সাগর উপকূল জাহাজ ভাঙা ইয়ার্ডে বিনা অনুমতিতে প্রবেশ করে দুই বিদেশি নাগরিক। তাদের সঙ্গে ছিল বাংলাদেশি এক গাইড। আটককৃত দুই বিদেশি নাগরিক হলেন, জসুয়া ক্রুল (২৫), মাইকেল স্টেবলার (৩৬)। তারা জার্মান থেকে বাংলাদেশে এসেছেন।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল রোববার সকাল নয়টার দিকে কুমিরা ফেরীঘাট এলাকা থেকে নৌকা ভাড়া নিয়ে জাহাজ ভাঙা কারখানা এলাকার বাইরের অংশে সাগর পথে বিভিন্ন কারখানার ছবি তুলছিলেন ওই দুই বিদেশি নাগরিক। তারা কুমিরা থেকে দক্ষিণ দিকে যাচ্ছিলেন। তারা উপজেলার ভাটিয়ারী ইউনিয়নের কদমরসুল এলাকায় আরেফিন এন্টারপ্রাইজ নামে একটি জাহাজ ভাঙা কারখানার ছবি তোলার সময় কারখানা কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। পরে অনুপ্রবেশ ও ছবি তোলার দায়ে ওই দুই বিদেশি নাগরিকসহ তিনজনকে আটক করে পুলিশে হস্তান্তর করে। এ ব্যাপারে কারখানা কর্তৃপক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

আটক বিদেশি নাগরিকদের গাইড হিসেবে থাকা সাব্বির জাহানের বরাত দিয়ে সীতাকুণ্ড থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) টিবলু কুমার মজুমদার বলেন, দুই বিদেশি নাগরিক পাঁচ দিনের জন্য ব্যবসার কাজে বাংলাদেশে এসেছিলেন। কিন্তু তাদের কাজ তিন দিনে শেষ হয়ে যাওয়ায় তারা দেশের বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখার পরিকল্পনা করেন। পরে তারা দেশ ঘুরি ডট কম নামের একটি ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে গেল শনিবার চট্টগ্রাম নগরে আসেন। রাত্রিযাপন শেষে রোববার সীতাকুণ্ডে পৌঁছেন।
------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : নিরাপদ সড়কের জন্য জেলা প্রশাসকের ব্যতিক্রমী উদ্যোগ
------------------------------------------------------------------

সীতাকুণ্ড থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. দেলওয়ার হোসেন বলেন, ওই দুই বিদেশি নাগরিক পুশিকে না জানিয়ে সীতাকুণ্ডে এসেছেন। তাই তাদের ব্যাপারে তথ্য পুলিশের কাছে ছিল না। না হলে পুলিশ তাদের স্কট করে নিয়ে যেত।

তারা অবৈধভাবে জাহাজ ভাঙা কারখানায় প্রবেশ করে। ফলে তাদেরকে সন্দেহ করে আটক করে জাহাজ ভাঙা কারখানা কর্তৃপক্ষ। পরে এক ব্যক্তির জিম্মায় তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে। সাব্বিরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

এদিকে সোমবার সকালে সাব্বিরের দেয়া তথ্য অনুযায়ী কুমিরা এলাকা থেকে মতিলাল জলদাস নামে আরও এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। সে ওই বিদেশি নাগরিকদের তার ব্যবহৃত নৌকা দিয়ে জাহাজভাঙা ইয়ার্ডে নিয়ে গিয়েছিল।

আরও পড়ুন  :

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়