• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

সৌন্দর্য হারাচ্ছে হিমছড়ি ঝর্ণা

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ৩০ আগস্ট ২০১৮, ১৯:২৪ | আপডেট : ৩০ আগস্ট ২০১৮, ১৯:৩৩
অযত্ন আর অবহেলায় জৌলুস হারাচ্ছে প্রকৃতির নয়নাভিরাম সৌন্দর্যের নিদর্শন কক্সবাজারের ‘হিমছড়ি ঝর্ণা পর্যটন স্পট’। অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার কারণে ক্ষুব্ধ সেখানে ঘুরতে যাওয়া অনেক পর্যটক। তবে কর্তৃপক্ষ বলছে, স্পটটি পুনরুদ্ধার করতে ইকো-ট্যুরিজম প্রকল্পের আওতায় ইতোমধ্যে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

কক্সবাজার শহর থেকে ৮ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত পর্যটন স্পট হিমছড়ি ঝর্ণা। সমুদ্রের পাশ ঘেঁষে পাহাড়ের বুক চিড়ে মেরিন ড্রাইভ সড়ক ধরে যেতে হয় এই পর্যটন স্পটটিতে। মৌসুমে কক্সবাজারের অন্য পর্যটন স্পটগুলোর মতোই প্রকৃতির অপরূপ নিদর্শন হিমছড়ি ঝর্ণাতেও পর্যটকদের ভিড় লেগেই থাকে। বর্তমানে পর্যটন স্পটটি বেহাল। পাহাড়ে ফাটল আর নোংরা পরিবেশের কারণে হতাশ ও ক্ষুব্ধ পর্যটকরা।

মৌরীন নামের এক পর্যটক জানান, অনেক নোংরা আশেপাশে। সেইরকম কোনও পরিবেশ নেই।

আয়েশা নামের অপর এক পর্যটক জানান, ঝর্ণাটা আর আগের মতো ন্যাচারাল নেই। শুধু আমার কাছে নয় সবার কাছেই মনে হচ্ছে এটি আর্টিফিশিয়াল।

সীতাকুণ্ড থেকে হাবিব নামের এক পর্যটক বলেন, এখানে ন্যাচারালিটি বলতে কিছু নেই। সামান্য একটু জায়গার জন্য ৩০ টাকা নিয়েছে।

এসব অনিয়মের বিষয়ে কোনও সদুত্তর দিতে পারেননি পর্যটন স্পটটির ইজারাদাররা।

টিকিট কাউন্টারে কর্মরত একজন বলেন, জানিনা কেন টিকিটের দাম ৩০ টাকা। এটা ইজারাদার বলতে পারবেন। আমি এখানে সামান্য কর্মচারী।

তবে কর্তৃপক্ষ বলছে, স্পটটি পুনরুদ্ধার করতে ইকো-ট্যুরিজম প্রকল্পের আওতায় ইতোমধ্যে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

কক্সবাজার দক্ষিণের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ও উপ-বন সংরক্ষক মো. আলী কবীর বলেন, পাহাড়ের ভাঙন অনেক আগ থেকেই শুরু হয়েছে। যার ফলে ঝর্ণা অনেক দূরে সরে গেছে। ইতোমধ্যে একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে অনেক কাজ করা সম্ভব হবে।

আরও পড়ুন :

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়