• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

ট্র্যাফিক সপ্তাহ পালন

চট্টগ্রাম নগরীতে যানবাহনের বিরুদ্ধে দশ দিনে ১২ হাজার মামলা

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি
|  ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১৫:৫৩ | আপডেট : ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১৬:৪৯
গেলো ৫ থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত দশ দিন ধরে পালিত হওয়া ট্র্যাফিক সপ্তাহে চট্টগ্রাম মহানগরীতে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ১১ হাজার সাতশ’ ১২ মামলা দেয়া হয়েছে। গাড়ি আটক করা হয়েছে নয়শ’ ৪৫টি। মামলাগুলোতে জরিমানা করা হয়েছে ৩৫ লাখ ৩৩ হাজার ১০০ টাকা।

শেষ হয়ে যাওয়া ট্র্যাফিক সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি মামলা করা হয়েছে মোটরসাইকেল ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার বিরুদ্ধে।

গেলো পাঁচ আগস্ট থেকে সারাদেশে ট্র্যাফিক সপ্তাহ পালনের ঘোষণা দেয় পুলিশ। গত শনিবার ট্র্যাফিক সপ্তাহ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও তা আরও তিনদিন বাড়িয়ে মঙ্গলবার (১৪ আগস্ট) শেষ হয়।
------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : বাসচাপায় স্কুলছাত্রীসহ ৩ জনের মৃত্যু, চালক আটক
------------------------------------------------------------------

নগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) কুসুম দেওয়ান জানিয়েছেন, ট্রাফিক সপ্তাহে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে প্রতিদিন গড়ে এক হাজারের বেশি মামলা হয়েছে বিভিন্ন যানবাহনের বিরুদ্ধে। আশা করছি ট্র্যাফিক সপ্তাহের ইতিবাচক ফলাফল আমরা পাব।

নগর পুলিশের ট্র্যাফিক বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) হারুন উর রশিদ হাজারী আরটিভি অনলাইনকে বলেন, ট্র্যাফিক সপ্তাহ চলাকালে আমরা যানবাহনের বিরুদ্ধে মামলা ও জরিমানা করেছি। এরপরও গাড়ি চালকসহ সাধারণ মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করছি, যাতে মানুষ জেব্রা ক্রসিং দিয়ে পারাপার হয়। যাতে মানুষ ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহার করে। আর চালকদেরও শৃঙ্খলার মধ্যে আনার জন্য আমাদের চেষ্টা অব্যাহত আছে। আশা করছি এর সুফলতা পাব।

তিনি আরও বলেন ট্রাফিক সপ্তাহ চলাকালে যাদের বেশি সমস্যা পাওয়া গেছে, আইন মেনে তাদের ডাম্পিংয়ে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া গাড়ির ফিটনেস না থাকা, ট্রাফিক আইন অমান্য করা, উল্টো পথে গাড়ি চালানো, হাইড্রোলিক হর্ন ব্যবহার করা ও গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার করার দায়ে মামলা দেয়া হয়।

ট্র্যাফিক পুলিশ সূত্রে জানা যায়, স্বাভাবিক সময়ে চট্টগ্রাম নগরীতে মামলা হতো প্রতিদিন তিনশ’র মতো। আর ট্র্যাফিক সপ্তাহ চলাকালে মামলা হয়েছে প্রতিদিন এক হাজারেরও ওপরে।

আরও পড়ুন :

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়