‘দুই ফেরিতে শত শত গাড়ি কীভাবে পার হবে’

প্রকাশ | ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১৪:৪২ | আপডেট: ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১৫:২৩

শরীয়তপুর প্রতিনিধি

শরীয়তপুর-চাঁদপুর নরসিংহপুর ফেরী ঘাটে দীর্ঘ যানজট দেখা দিয়েছে। গেলো দু’দিন ধরে কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে নদীর নাব্যতা সংকটের কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার শত শত যাত্রীবাহী বাস, মালবাহী ট্রাক, বিশেষ করে কুরবানি উপলক্ষে শত শত গরুর টাক এ রুটে ফেরি পার হয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাতায়াত করছে। 

নরসিংহপুর ফেরি ঘাটে করবী ও কুসুমকলী মাত্র দুটি ফেরি দিয়ে গাড়ি পারাপার করা সম্ভব হয়ে উঠছে না। ফলে ২ কিলোমিটার দীর্ঘ যানজট দেখা দিয়েছে। ফেরি ঘাট থেকে আবুল খায়ের পর্যন্ত দীর্ঘ যানজটে পড়েছে প্রায় ২শ’ গাড়ি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছে গরুবাহী ট্রাক ও পিকআপভ্যান। 

জরুরি ভিত্তিতে নরসিংহপুর ফেরী ঘাটে ফেরির সংখ্যা বাড়ি দিয়ে যানজট কমানোর দাবী করেছে বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ। অন্যথায় ঈদকে সামনে রেখে মানুষের চরম ভোগান্তি হবে।

বাস যাত্রী শিহাবুল বলেন, নরসিংহপুর ফেরিঘাটে যে যানজট দেখা দিয়েছে তাতে আমরা ২ দিনেও পার হতে পারবো না। দুই ফেরিতে শত শত গাড়ি কীভাবে যাবে। আমাদের খাওয়া থাকা ও গোসলের খুবই সমস্যা হচ্ছে। জরুরি ভিত্তিতে ফেরি বাড়িয়ে দেয়া উচিৎ। 

ট্রাক চালক আ. খালেক বলেন, ঈদকে সামনে রেখে গরুর গাড়ি নিয়ে চট্টগ্রাম যাব। নরসিংহপুর ফেরী ঘাটে এসে আটকা পড়েছি। কবে যেতে পারবো জানি না। গরু নিয়ে খুবই সমস্যায় আছি। 

এ ব্যাপারে নরসিংহপুর ফেরী ঘাটের বিআইডব্লিউটিএ’র ম্যানেজার আ. সাত্তার আরটিভি অনলাইনকে বলেন, গত ২ দিন যাবত কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে নদীর নাব্যতা সংকটের কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার শত শত যাত্রীবাহী বাস ও মালবাহী ট্রাক একবারে এসে আটকা পড়েছে। মাত্র দুটি ফেরী দিয়ে গাড়ি পারাপার করে সামাল দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। গাড়ির তুলনায় ফেরি কম। আরও ফেরি দরকার, অন্যথায় মানুষের চরম ভোগান্তি হবে।

সখিপুর থানার ওসি মো. মনজুরুল হক আকন্দ বলেন, কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি বন্ধ থাকায় নরসিংহপুর ফেরি ঘাটে যানজট দেখা দিয়েছে। মাত্র দুটি ফেরি দিয়ে এত গাড়ি পারাপার সম্ভব হচ্ছে না। আইনশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এসএস