• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবা না পেয়ে ঘাসের ওপর সন্তান প্রসব করলেন প্রসূতি মা

দিনাজপুর প্রতিনিধি
|  ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১৫:১৪ | আপডেট : ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১৫:২৩
দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবা নিতে এসে সেবা না পেয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভবনের সামনের একটি কামরাঙ্গা গাছের নিচে ঘাসের ওপর সন্তান প্রসব করেছেন এক প্রসূতি মা। তবু কোনও সেবা বা সহযোগিতা করতে আসেনি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মরত কোনও নার্স বা চিকিৎসক।

গতকাল রোববার সকাল ছয়টার দিকে দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ফুলবাড়ী উপজেলার পার্শ্ববর্তী পার্বতীপুর উপজেলার হামিপুর ইউনিয়নের বাঁশপুকুর গ্রামের বাসিন্দা রিকশাচালক আবু তাহেরের স্ত্রীর প্রসববেদনা শুরু হলে ভোর সাড়ে পাঁচটায় ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়।

সেখানে কর্মরত সেবিকা রোজিনা আক্তার ও আফরোজা খাতুন প্রসব বেদনায় ছটফট করা আবু তাহেরের স্ত্রীকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি না করে বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে যেতে বলেন এবং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দ্বিতীয় তলা থেকে নিচে নামিয়ে দেন।

এসময় রোগীর প্রসব বেদনা আরও তীব্র হলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশের এক নারীর সহযোগিতায় কামরাঙ্গা গাছের নিচে ঘাসের ওপর কন্যা শিশুর জন্ম দেন ওই প্রসূতি মা। পরে এলাকাবাসীর ক্ষোভের মুখে প্রসূতি মা ও তার নবজাতক শিশুকে হাসপাতালের বেডে নেয়া হয়।

ভুক্তভোগী নারীর স্বামী আবু তাহের আরটিভি অনলাইনকে জানান, তার স্ত্রীর প্রসব ব্যথা উঠলে দ্রুত ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। কিন্তু সেখানে বারবার অনুরোধ করার পরেও কর্তব্যরত নার্সরা সেবা দেননি। অবশেষে খোলা আকাশের নিচেই তার স্ত্রীকে সন্তান প্রসব করতে হয়েছে।

ওই প্রসূতি মা বলেন, তিনি যখন প্রসব ব্যথায় কাতর ঠিক তখন ওই সেবিকারা বলেন, তার পেটে টিউমার আছে। তাকে এখানে প্রসব করা যাবে না। পরে স্থানীয় প্রাইভেট ক্লিনিকে যাবার কথা বলে ওপরতলা থেকে নিচে জোর করে নামিয়ে দেন।

এই বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুরুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি আরটিভি অনলাইনকে বলেন, লোকমুখে ঘটনাটি শুনতে পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে এসে নবজাতকের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছি। দায়িত্বহীনতার জন্য অভিযুক্ত নার্সদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেবি/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়