• ঢাকা শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

বড়াইগ্রামে বখাটেদের হাত থেকে বাঁচতে গৃহবধূর আত্মহত্যা

নাটোর প্রতিনিধি
|  ০৯ আগস্ট ২০১৮, ১৮:২৪ | আপডেট : ০৯ আগস্ট ২০১৮, ১৮:৫৩
বখাটের তোলা অশ্লীল ছবি ও নির্যাতনের কারণে নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ ওঠেছে।

গেল মঙ্গলবার রাতে উপজেলার জোনাইল ইউনিয়নের সারাবাড়িয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

নিহত গৃহবধূর নাম শিপ্রা কস্তা (৩০)।  তিনি ওই গ্রামের ডমিনিক রোজারিওর স্ত্রী।

নিহত শিপ্রার পরিবার সূত্রে জানা যায়, শিপ্রার স্বামী ডমিনিক রোজারিও ফরিদপুরের একটি বেকারিতে চাকরি করতেন। শিপ্রা দুই সন্তান নিয়ে বাড়িতে থাকতেন। গেলো ১৭ জুলাই ডমিনিক রোজারিও ফরিদপুর থেকে প্রতিবেশী দোকানদার শাহ আলমের বিকাশে বাড়ির জন্য টাকা পাঠান। রাতে শাহ আলম টাকা দিতে শিপ্রার বাড়িতে যান। এসময় এলাকার আলম ফকির, সবুজ সরকার, আবু হানিফ শিপ্রার বাড়িতে গিয়ে হামলা করে। এই তিনজন শিপ্রা ও শাহ আলমকে মারপিট করে তাদের পোশাক খুলে অশ্লীল ছবি তোলে।

-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : বাহুবলে বৃদ্ধকে জিহ্বা কেটে হত্যা
-------------------------------------------------------

এই ঘটনার পর থেকে ওই তিনজন শিপ্রাকে মানসিকভাবে নির্যাতন শুরু করে। এরই প্রেক্ষিতে গেল ২৪ জুলাই শিপ্রা অভিযুক্ত আলম ফকির, সবুজ সরকার, আবু হানিফের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

পুলিশ অভিযুক্ত তিনজনকে আটকের পরিবর্তে তদন্তের নামে ঘটনাটি এলাকায় প্রচার করে। এর প্রেক্ষিতে লোকলজ্জার ভয়ে গেল মঙ্গলবার রাতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন শিপ্রা কস্তা।

এই ঘটনায় শিপ্রার বাবা পিটার কোস্তা দোকানদার শাহ আলমসহ আলম ফকির, সবুজ সরকার ও আবু হানিফের বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে বড়াইগ্রাম থানায় মামলা করেন।

এ ব্যাপারে বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দিলিপ কুমার ও নাটোরের পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার ক্যামেরার সামনে কিছু বলতে চাননি। তবে পুলিশ সুপার দাবি করেছেন এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন :

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়