• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

বরগুনায় ভুল চিকিৎসায় প্রসূতি মৃত্যুর অভিযোগ

বরগুনা (উত্তর) প্রতিনিধি
|  ১৪ জুলাই ২০১৮, ১১:৪৮ | আপডেট : ১৪ জুলাই ২০১৮, ১২:১২
বরগুনার পাথরঘাটায় সৌদি প্রবাসী নামের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় সালমা বেগম (২৫) নামে এক নারীর মৃত্যুর অভিযোগ ওঠেছে।

শুক্রবার রাত ২টার দিকে পাথরঘাটা সৌদি প্রবাসী ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে এ ঘটনা ঘটে। ওই নারীর মৃত্যুর খবর শুনে তার আত্মীয়-স্বজন এবং এলাকাবাসী সৌদি প্রবাসী ক্লিনিক ঘেরাও করে রাখে। ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ এবং চিকিৎসক ঘটনার পর থেকেই পলাতক রয়েছে। 

সালমা বরগুনার তালতলী উপজেলার বড়বগী ইউনিয়নের শিকারী পাড়া গ্রামের মো. মনির হোসেনের স্ত্রী ও পাথরঘাটা উপজেলার কালমেঘা ইউনিয়নের বড় পাথরঘাটা গ্রামের হানিফা মেয়ে।

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : নারায়ণগঞ্জে স্ত্রীকে হত্যা, স্বামী পলাতক
--------------------------------------------------------

মৃত সালমা বেগমের স্বামী মো. মনির জানান, আসমা বেগমের প্রসব ব্যথা অনুভব হলে পাথরঘাটা সৌদি প্রবাসী ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে আসা হয়। সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে রাত অনুমান দেড়টার দিকে চিকিৎসক রুনা রহমান অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে সিজারিয়ান অপারেশন করেন।  ঘণ্টা খানেক পর অপরাশেন থিয়েটার থেকে বের হয়ে এসে জানান, সালমার প্রেসার হাই হয়ে গেছে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বরিশালে নিয়ে যেতে হবে।  

তিনি আরও জানান, অ্যাম্বুলেন্সে করে সালমাকে বরিশাল নেয়ার পথে সন্দেহ হলে তারা ফের পরীক্ষার জন্য পাথরঘাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক ভোর ৫টার দিকে শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা করে সালমাকে মৃত ঘোষণা করেন এবং জানান রোগী আরও ১ থেকে দেড় ঘণ্টা আগে মারা গেছেন। ডাক্তারের ভুল চিকিৎসা এবং অবহেলার কারণেই আমার স্ত্রী মারা গেছে। আমি এর বিচার চাই।

অপারেশনের সময় ওটিতে থাকা সেবিকা দীপা রানী বলেন, ডাক্তার রুনা রহমান প্রায় ১০ থেকে ১৫ বার তাকে অজ্ঞান করার ইনজেকশন দিতে দেখা গেছে। অপরদিকে পাথরঘাটা উপজেলা ডাক্তার আনোয়ার উল্যাহ জানান, রুনা রহমান সার্জারি ডাক্তার নয়।

এদিকে পাথরঘাটা উপজেলার কালমেঘা ইউপি চেয়ারম্যান ও পাথরঘাটা পৌর মেয়র ক্লিনিকে গিয়ে বিষয়টি রফাদফা করে মরদেহটি বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

ঘটনাস্থলে গিয়ে পাথরঘাটা থানা এসআই মরদেহ না পেয়ে থানায় ফিরে আসেন। তবে বিষয়টি শুনেছেন। 

পাথরঘাটা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা মো. খবীর আহমেদ মুঠোফোনে জানান, খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। লিখিত অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এসএস 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়