• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

বরিশাল সিটি করপোরেশন

১৬ বছরেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি বর্ধিত ওয়ার্ডগুলোতে

বরিশাল প্রতিনিধি
|  ১১ জুলাই ২০১৮, ১১:১৪ | আপডেট : ১১ জুলাই ২০১৮, ১১:৪৪
সিটি করপোরেশন ঘোষণার ১৬ বছরেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি বরিশালের বর্ধিত ওয়ার্ডগুলোতে। প্রায় সবধরনের নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত এসব ওয়ার্ডের বাসিন্দারা। নতুন করে যিনি নগরপিতা হবেন তার কাছে উন্নয়নের প্রত্যাশা করছেন এসব এলাকার ভোটাররা। 

২০০২ সালে পৌরসভার ২০টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত হয় বরিশাল সিটি করপোরেশন। পরে সেখানে যুক্ত হয় নতুন ১০টি ওয়ার্ড। ৩০টি ওয়ার্ড নিয়ে সিটি করপোরেশনের এলাকা দাঁড়ায় ৫৮ বর্গ কিলোমিটার।

নগরবাসীর অভিযোগ, করপোরেশন গঠনের ১৬ বছর হয়ে গেলেও কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন হয়নি নতুন অন্তর্ভুক্ত এলাকাগুলোতে। নগরীর সাগরদি, জাগুয়া ও কাশিপুর এলাকার বিভিন্ন অংশ নিয়ে গঠিত ২৩ থেকে ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা আছেন উন্নয়ন বঞ্চিত।  

-----------------------------------------------
আরও পড়ুন : রাজশাহীকে মেগাসিটি করা হবে: লিটন
 -----------------------------------------------

ওইসব ওয়ার্ডের স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, পানি, বিদ্যুৎ ও রাস্তা কিছুই নেই। সিটি করপোরেশন ট্যাক্স নেয় কিন্তু সেই ধরনের সুবিধা তারা আজ পর্যন্ত দিতে পারে নাই।

তবে সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষের দাবি, নতুন এলাকাগুলোতে প্রয়োজনীয় উন্নয়ন হয়েছে। সামনে আরও গুরুত্ব দিয়ে সেখানকার অবকাঠামো উন্নয়নে কাজ করা হবে বলে জানান বরিশাল সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামান। তিনি বলেন, এই সরকারের সময় যে পরিমাণ টাকা আসছে সেগুলো আমরা অনেকটাই বর্ধিত এলাকায় দিতে পেরেছি এবং সেখানে অনেক উন্নতও হয়েছে।    

সামনের নির্বাচনে বিজয়ী মেয়র নতুন এলাকাগুলোর উন্নয়নে গুরুত্ব দেবেন এমন প্রত্যাশা এখন নগরবাসীর।

বরিশালে মেয়র পদে ছয় জন এবং সাধারণ ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১২৯ জনসহ মোট ১৩৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। 

মেয়র প্রার্থীরা হলেন- আওয়ামী লীগের (নৌকা) সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ, বিএনপির (ধানের শীষ) মজিবর রহমান সারোয়ার, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের (হাতপাখা) মাওলানা ওবায়দুর রহমান মাহবুব, সিপিবির (কাস্তে) অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ, বাসদের ডা. মণীষা চক্রবর্তী ও জাতীয় পার্টির (লাঙল) ইকবাল হোসেন।

এই সিটিতে ৩০টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৯৪ জন এবং ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৩৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছেন মুজিবুর রহমান।

বরিশাল সিটিতে মোট ভোটার ২ লাখ ৪১ হাজার ৯৫৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ২১ হাজার ৩৩২ জন, নারী ভোটার ১ লাখ ২০ হাজার ৬২৭ জন।

আরও পড়ুন : 

এসএস 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়