• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

জনবল নিয়োগে মেহেরপুর স্বাস্থ্য বিভাগের গোপন টেন্ডারের অভিযোগ

মেহেরপুর প্রতিনিধি
|  ০৮ জুলাই ২০১৮, ২২:০১ | আপডেট : ০৮ জুলাই ২০১৮, ২২:২৩

আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে ৪৬ জন চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী নিয়োগ দিতে গোপন টেন্ডার দিয়েছে মেহেরপুর সিভিল সার্জন অফিস এবং মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল। নিয়োগ বাণিজ্য করতে এমনটি করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জেলার বিভিন্ন স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানের জন্য ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে আউটসোর্সিং পদ্ধতিতে জনবল সরবরাহের লক্ষ্যে দুটি পত্রিকায় গত ৬ জুন আলাদা দুটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়।

সিভিল সার্জন অফিসের অধীনে ২০ জন ও হাসপাতালের অধীনে ২৬ জন চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী নিয়োগের জন্য জনবল সরবরাহকারী কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে দরপত্র আহ্বান করা হয়। ২৪ জুন দরপত্র দাখিলের শেষদিন পেরিয়ে গেলে বিষয়টি অনেকের নজরে আসে।

মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ফরহাদ হোসেন দোদুল বলেন, তারা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে গোপন টেন্ডার দিয়েছে। ‘দৈনিক সন্ধানী বার্তা’ নামের যে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে, তার নাম মেহেরপুরের কেউ কখনও শুনেছে কিনা বলতে পারছে না। এটি মেহেরপুর জেলাতেও আসে না। ইন্টারনেটেও এই নামে কিছু খুঁজে পেলাম না। ইংরেজি পত্রিকার নাম হচ্ছে ‘দি ডেইলি আর্থ’। এসব আন্ডারগ্রাউন্ড পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিলে হবে না, বহুল প্রচারিত পত্রিকায় দিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, তাদের উদ্দেশ্য অত্যন্ত খারাপ। সিভিল সার্জন ডা. জি.কে.এম শামসুজ্জামান এবং হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মিজানুর রহমান সহপাঠী। তারা ইচ্ছেমতো নিয়োগ বাণিজ্য করতে চাইছে। আমি হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি হওয়া সত্ত্বেও আমাকে কিছুই জানানো হয়নি। পুনরায় দরপত্র বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের জন্য আমি স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং প্রতিমন্ত্রীর কাছে ডিও দিয়েছি। সংশ্লিষ্ট সব দপ্তরের সঙ্গে কথা বলেছি।

নিয়োগ প্রক্রিয়ায় কাগজপত্র চাইলে মিজানুর রহমান এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। তবে সিভিল সার্জন শামসুজ্জামান বলেন, বহুল প্রচারিত পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে হবে এমন কোনও শর্ত নেই। টেন্ডারের নিয়মানুযায়ী যাচাই-বাছাই হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে কি করা যায় তা পরে জানানো হবে।

কে/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়