• ঢাকা শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫

রোগী জিম্মি করে ‘খেলা’ বন্ধ করুন: ক্যাব

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০৮ জুলাই ২০১৮, ২০:৩২ | আপডেট : ০৮ জুলাই ২০১৮, ২১:৩০
ভুল চিকিৎসা ও চিকিৎসকের অবহেলায় এক শিশুর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উদ্ভুত পরিস্থিতি এবং র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ব্যাপক অনিয়মে অভিযুক্ত ম্যাক্স হাসপাতালকে জরিমানার পর চিকিৎসাসেবা বন্ধের ঘোষণায় উদ্বেগ জানিয়েছেন কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)।

রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ক্যাব নেতারা এ উদ্বেগের কথা জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, বেসরকারি চিকিৎসক সমিতির ব্যানারে কোনও প্রকার ঘোষণা ছাড়াই বেসরকারি ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও প্রাইভেট প্র্যাকটিসসহ সকল চিকিৎসা কার্যক্রম বন্ধ করে র‌্যাবের অভিযান বন্ধে আল্টিমেটাম দিয়ে চট্টগ্রামের সকল চিকিৎসকের ব্যক্তিগত চেম্বার, বেসরকারি ক্লিনিক, প্যাথলজিক্যাল ল্যাবে অনির্দিষ্টকালের জন্য সকল চিকিৎসা বন্ধ করে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এ ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে অভিযুক্ত ম্যাক্স হাসপাতাল ও বেসরকারি ক্লিনিকে র‌্যাবের অভিযান বন্ধের দাবি করে সাধারণ রোগীদেরকে জিম্মি করে সাধারণ মানুষের জীবন নিয়ে খেলা বন্ধের দাবি জানিয়েছে ক্যাব।

নেতারা আরও বলেন, র‌্যাব দেশের সাধারণ জনগণের বৃহত্তর স্বার্থে নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে বিতর্কিত ম্যাক্স হাসপাতালে অভিযান পরিচালনা করেন এবং ব্যাপক অনিয়ম পান। সে কারণে তাদেরকে শাস্তি প্রদান করা হয়। কিন্তু বেসরকারি ক্লিনিকগুলোর কোনও অভিযোগ থাকলে মন্ত্রণালয় ও প্রশাসনের সাথে আলোচনা করতে পারেন। কিন্তু র‌্যাবের অভিযানকে প্রতিহত করার হীন ষড়যন্ত্রে ধর্মঘটের ডাক দেয়া জনগণের চিকিৎসা সেবার মৌলিক অধিকার খর্ব করার শামিল। এটা শুধু নিন্দনীয় নয়, চরম বর্বরতার শামিল। এটা অনেকটা লাশের রাজনীতির মতো।

নেতারা শিগগিরই লাখ লাখ রোগীকে জিম্মি করে এ ধরনের অনৈতিক, অন্যায্য, অযৌক্তিক ও অমানবিক কর্মকাণ্ড পরিহার করে সকল বেসরকারি চিকিৎসক ও ক্লিনিক মালিকদেরকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সরকারের কাছে প্রতিকার চাওয়ার পরামর্শ দিয়ে অবৈধ ধর্মঘট প্রত্যাহারের দাবি করেন।

সাধারণ জনগণকে জিম্মি করে বেসরকারি ক্লিনিক, চেম্বার, প্যাথলজি ল্যাব ও সকল চিকিৎসা বন্ধের ঘোষণায় হতাশা প্রকাশ করে ক্যাব নেতারা রোগীদেরকে জিম্মি করে র‌্যাবের অভিযানকে নস্যাৎ করার হীন ষড়যন্ত্র পরিহার করারও আহ্বান জানান।

গুটি কয়েক অসাধু লোকের অর্থ লিপসার কারণে চেম্বার ও ক্লিনিক বন্ধে সকল চিকিৎসকের একযোগে অঘোষিত ধর্মঘট চিকিৎসকের মহান পেশাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে এবং চিকিৎসকরা আইনের ঊর্ধ্বে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এ ধরনের আত্মঘাতী কর্মসূচি থেকে সরে আসারও আহ্বান জানান তারা।

ক্যাব নেতারা আরও বলেন, চিকিৎসাসেবা একটি মহান পেশা। সেবাধর্মী পেশা হলেও বর্তমানে কিছু অসাধু চিকিৎসক ও ক্লিনিক মালিকদের কারণে এ মহান পেশাকে কাজে লাগিয়ে দিনে দিনে কোটিপতি হবার বাসনায় লিপ্ত। সেই কারণে রোগীর সেবা, মানবতার সেবার চেয়ে অর্থই তাদের কাছে মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক ও সুযোগ-সুবিধা থাকলেও রোগীরা সেখানে ন্যূনতম চিকিৎসাসেবা পাচ্ছে না। রোগীদের ক্লিনিক ও চেম্বারে যেতে পারমর্শ দেয়া হয়। আর যে কোনও মানুষ রোগাক্রান্ত-রোগী হলেই আগে পরামর্শ দেয়া হয় প্যাথলজিক্যাল টেস্ট ও অপারেশনের। কারণ এতে চিকিৎকদের লাভ বেশি। যার কারণে প্যাথলজিক্যাল ল্যাবগুলো ব্যাঙের ছাতার মতো শহর, গ্রাম সর্বত্র ছড়িয়ে পড়েছে। আর ক্লিনিকগুলো নামমাত্র সেবা দিয়ে গলাকাটা বিল আদায় করছে। বিএমএসহ সরকার ও বিরোধীদলের সমর্থিত চিকিৎসকদের পেশাজীবী সংগঠনগুলোর দৌরাত্ম্য একচেটিয়া প্রভাবের কারণে এখানে রোগীদের মানসম্মত সেবা নিশ্চিত করতে সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগের কোনও প্রকার নজরদারি করার সাহস পর্যন্ত নেই। ফলে মানুষ অসহায় হয়ে পার্শ্ববর্তী দেশে চিকিৎসার জন্য ভিড় জমায়।

ক্যাব নেতারা স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সেক্টরে এ ধরনের নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য ক্লিনিক, প্যাথলজিক্যাল ল্যাবসহ স্বাস্থ্য বিভাগের সকল প্রতিষ্ঠানে কঠোর নজরদারির দাবি জানান। স্বাস্থ্য সেক্টরে কমিশন প্রথা, উপহার প্রথা বাতিলসহ ভোক্তা স্বার্থ রক্ষায় কঠোর আইনি প্রতিকার এবং সিবিএ সংগঠনের মতো বিএমএর অযাচিত হস্তক্ষেপ কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণের দাবি জানান।

পি

 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়