• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১ ভাদ্র ১৪২৫

একটি সেতুর জন্য প্রতীক্ষা

নওগাঁ প্রতিনিধি
|  ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ১৬:১০ | আপডেট : ২২ জানুয়ারি ২০১৮, ১৭:১২
নওগাঁর আত্রাই উপজেলার ভবানীপুর বাজার সংলগ্ন নদীতে একটি সেতুর অভাবে যুগ যুগ ধরে দুই ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে একটি মাত্র নৌকার মাধ্যমে নদী পারাপার করছে।

এই সেতুটি নির্মাণের দাবি গ্রামবাসীর দীর্ঘদিনের। দেশ স্বাধীনের পর থেকেই এ সেতুটি নির্মাণের জন্য এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে অনেক আবেদন-নিবেদন করেও কোনো লাভ হয়নি। বিভিন্ন সময় আশ্বাস পাওয়া গেছে। কিন্তু আজও তা বাস্তবায়ন হয়নি। ফলে এ পথে যাতায়াত করতে শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের জনগণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সরেজমিনে উপজেলার রায়পুর গ্রামবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আত্রাই উপজেলার শাহাগোলা ইউনিয়নের ভবানীপুর বাজার সংলগ্ন রায়পুর গ্রামবাসীর যোগাযোগের একমাত্র রাস্তা হওয়ায় প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছে কৃষক, শ্রমিক ও স্কুল শিক্ষার্থীসহ হাজার হাজার মানুষ।

রায়পুর, ডাঙ্গাপাড়া, ভবানীপুরসহ বেশ কয়েকটা গ্রামের লোকজনকে পারাপার হতে হয় একটি মাত্র নৌকা দিয়ে। রায়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ভবানীপুর জিএস উচ্চ বিদ্যালয়, ইক্বরা মহিলা মাদরাসা ও এতিমখানা অ্যান্ড নুরানি স্কুলের শত শত শিক্ষার্থীদের আসা যাওয়ার জন্য এ পথ ব্যবহার করতে হয়। যা কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ।

আত্রাই উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় উন্নয়নের ছোঁয়া লাগলেও একটি সেতুর অভাবে রায়পুর গ্রামবাসীর স্বপ্ন যেন থমকে আছে। একটি সেতুর অভাবে নানা সমস্যায় জর্জরিত এ গ্রামের মানুষের জীবনযাত্রা। সকাল হলে দীর্ঘ লাইন ধরে ঘাটে নৌকার জন্য দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। হাট-বাজার, অফিস, স্কুল-কলেজে যাওয়া রায়পুরবাসীর কাছে একটি বড় বিড়ম্বনা। এ পথ কৃষিপণ্য পরিবহনের উপযোগী না হওয়ায় এলাকার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য সহজভাবে বাজারজাত করতে পারে না। ফলে তারা বঞ্চিত হয় ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তি থেকে। এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি এখানে একটি স্থায়ী সেতু নির্মাণের। এখানে সেতু নির্মাণ করা হলে এলাকাবাসীর এক নতুন দিগন্তের উন্মোচন ঘটবে। ছাত্র-ছাত্রীসহ এলাকার সকল সাধারণ জনগণ পাবে যোগাযোগের সুফল।

এ বিষয়ে রায়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আক্কাছ আলী আরটিভি অনলাইনকে জানান, রায়পুরসহ আশপাশের গ্রামবাসীর স্বাধীনতার ৪৫ বছরে একটিই স্বপ্ন ব্রিজের। রায়পুর গ্রামে শুধু একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গণ্ডি পেরিয়ে গ্রামের ছেলে-মেয়েকে হাইস্কুল ও কলেজে পড়তে এবং চিকিৎসার জন্য গ্রামবাসীকে আত্রাই সদরে যেতে নদী পার হতে নানা সমস্যায় পড়তে হয়।

এ ব্যাপারে ১নং শাহাগোলা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম বাবু আরটিভি অনলাইনকে জানান, এ সমস্যা শুধু কালিকাপুর ইউনিয়নবাসীর নয়, এ সমস্যা আমার শাহাগোলা ইউনিয়নের সকল জনগণের। এখানে একটি ব্রিজ নির্মাণ হলে দুই ইউনিয়নের হাজার হাজার জনগণের দুর্ভোগ লাঘব হবে। নৌকার পরিবর্তে একটি ব্রিজ নির্মাণ রায়পুরবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি।

এ বিষয়ে কালিকাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নাজমুল হক নাদিম আরটিভি অনলাইনকে জানান, একটি সেতু না থাকায় রায়পুর গ্রামবাসী মহাসমস্যায় পড়েছে। আগে এই ইউনিয়নে রাস্তা-ঘাটের সমস্যা ছিল। অনেকটা সমাধান হয়েছে। এখন রায়পুর গ্রামবাসীর একটাই দুঃখ একটি সেতু। সরকারের কাছ থেকে আশ্বাস পেয়েছি। খুব শিগগিরই একটি আনন্দ সংবাদ পাব বলে আশা করছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী মোবারক হোসেন আরটিভি অনলাইনকে জানান, শাহাগোলা ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী কালিকাপুর ইউনিয়নের রায়পুর সেতুটি জনগুরুত্বপূর্ণ। আশা করছি জুন-জুলাই মাসের দিকে এই ব্রিজের কাজ শুরু হবে।

আরও পড়ুন

জেবি/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়