ফের অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে ভৈরবের একটি পরিবার

প্রকাশ | ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৭:৫৯

মো. আল আমিন টিটু, ভৈরব

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ৬ দিনের ব্যবধানে আবারো স্প্রে দিয়ে অজ্ঞান করার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল সোমবার রাতে এক পরিবারের ছয় সদস্যকে স্প্রে দিয়ে অজ্ঞান করা হয়েছে। তবে কেন বারবার এমন ঘটনা ঘটছে এই বিষয়ে কিছুই বুঝতে পারছেন না পুলিশ প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা।

এতে চরম আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠা নিজ ঘরে রাত যাপন করছেন লোকজন।

স্থানীয়রা জানায়, সোমবার রাতে শহরের কমলাপুর ফাতেমা রমজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন জাকির মিয়ার ভবনে ভাড়াটিয়া হাজী মো. হিরা মিয়ার পরিবারের ছয় সদস্য খাবার শেষে অজ্ঞান হয়ে পড়েন। বিষয়টি টের পেয়ে স্থানীয়রা তাদের দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

তারা হলেন, হাজি মো. হীরা মিয়া, তার স্ত্রী পরিষ্কার বানু, ছেলে হাবিবুল্লা, পুত্রবধূ তানিয়া, নাতি প্রিতম ও এমি। এদের মধ্যে হাজী মো. হীরা মিয়ার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার এনকেএম জাহাঙ্গীর আলম।

তিনি আরো বলেন, ৭২ ঘণ্টা অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত হাজী হীরা মিয়া শঙ্কামুক্ত কিনা এ বিষয়ে কিছুই বলা যাচ্ছে না।

এর আগে গেলো ১৯ ডিসেম্বর একই এলাকার মরহুম হাজী তেলু মিয়ার বাড়িতেও চেতনা নাশক স্প্রের কারণে একই পরিবারের ১৩জন সদস্য অজ্ঞান হয়ে পড়ে। আহতরা সবাই তেলু মিয়ার স্ত্রী-সন্তান, পুত্রবধূ ও নাতি-নাতনি ছিলেন।

হঠাৎ করে সমাজে এমন ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ায় বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক মহলসহ সুশীল সমাজকে ভাবিয়ে তুলছে।

বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ আলী সোহাগ আরটিভি অনলাইনকে জানান, কেন এমন ঘটনা ঘটছে, উদ্দেশ্য চুরি না ডাকাতি কিছুই বুঝতে পারছি না।

এ ব্যাপারে ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোখলেছুর রহমান আরটিভি অনলাইনকে জানান, বিষয়টি নিয়ে পুলিশ মাঠে কাজ করছে। তাছাড়া দুর্বৃত্তদের গ্রেপ্তার করতে পারলে আসল উদ্দেশ্য বেরিয়ে আসবে।

জেবি/পি