close
ঢাকা, সোমবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৮ | ০৯ মাঘ ১৪২৪

দেড় বছর ধরে বন্ধ উপবৃত্তি

আব্দুল কুদ্দুস চঞ্চল
|  ২৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৯:৩৬ | আপডেট : ২৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৯:৪৫
প্রধান শিক্ষক ও জেলা মনিটরিং কর্মকর্তার দ্বন্দ্বে কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে দেড় বছর ধরে বন্ধ একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপবৃত্তি প্রদান। ফলে দরিদ্র এলাকার ওই প্রতিষ্ঠানে কমতে শুরু করেছে শিক্ষার্থীর সংখ্যা।  

উপজেলার ইন্দ্রগড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপবৃত্তি বন্ধ রয়েছে ২০১৬ সালের জুন মাস থেকে। বিদ্যালয়টিতে আড়াইশর বেশি দরিদ্র শিক্ষার্থী লেখাপড়া করে। উপবৃত্তি বন্ধ থাকায় হতাশ শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। তাদের অভিযোগ স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও মনিটরিং কর্মকর্তার দ্বন্দ্বের জেরে উপবৃত্তি বন্ধ রয়েছে।  

শিক্ষার্থীরা বলছে, আমাদের আশপাশের স্কুলগুলোতে টাকা দেয়। কিন্তু আমাদের স্কুলে কেন টাকা দেয় না।

শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা অভিযোগ করেন, প্রধান শিক্ষক ও মনিটরিং অফিসারের দ্বন্দ্বে একবছর ধরে কোনো উপবৃত্তি দেয়া হয় না।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক মজিবর রহমান বলেন, জেলা মনিটরিং কর্মকর্তা ঢাকার একটি ইট ভাটায় শ্রমিক পাঠান। স্থানীয়ভাবে শ্রমিক ঠিক করে দিতে না পারায় এ দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। মনিটরিং অফিসার ইটের ব্যবসা করেন। সেখানে তার কথামতো শ্রমিক ঠিক করে দিতে না পারায় তিনি উপবৃত্তি বন্ধ করে দেন।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ওই স্কুল উপবৃত্তি পাওয়ার উপযোগী নয় বলে জানান জেলা মনিটরিং কর্মকর্তা মো. রোকনুজ্জামান।

তিনি বলেন, উপবৃত্তি সংক্রান্ত তথ্য হালফিল না থাকায় পরিদর্শনের পরিপ্রেক্ষিতে বিদ্যালয়টির উপবৃত্তি স্থগিত করা হয়েছে।

স্থানীয় প্রাথমিক শিক্ষা অফিস জানায়, প্রাক-প্রাথমিকে বছরে ৬শ’ এবং প্রথম থেকে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত ১২শ’ টাকা করে উপবৃত্তি দেয়া হয়।

 

জেবি/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়