• ঢাকা সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৯ আশ্বিন ১৪২৫

‘খাদ্য ও ত্রাণ আছে, এখন দরকার টয়লেট’

কক্সবাজার প্রতিনিধি
|  ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৬:১৩ | আপডেট : ০৪ অক্টোবর ২০১৭, ১৯:৫৬
রোহিঙ্গাদের জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য ও ত্রাণ রয়েছে। এই মুহূর্তে রোহিঙ্গাদের জন্য সবচেয়ে বেশি দরকার স্যানিটেশন টয়লেট। বললেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। 

মঙ্গলবার সকালে কক্সবাজার শহরের গোলদীঘির পাড়ে পূজামণ্ডপের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।

ওবায়দুল কাদের বলেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ১০ হাজার টয়লেট নির্মাণ জরুরী। দ্রুত ১০ হাজার স্যানিটেশন টয়লেট নির্মাণ করা না হলে রোহিঙ্গা শিবিরে রোগবালাই মহামারি আকার ধারণ করবে।

এসময় তিনি এই ১০ হাজার স্যানিটেশন টয়লেট নির্মাণের জন্য দেশি-বিদেশি এনজিওসহ সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

সেতুমন্ত্রী রোহিঙ্গা সংকটকালে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বিদেশে থাকায় তার সমালোচনাও করে বলেন, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের নিয়ে দেশে এখন মানবিক সংকট চলছে। সারাদেশের মানুষ এখন রোহিঙ্গাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু এই সংকটেও বিএনপির চেয়ারপারসন দেশে নেই। তিনি মাসের পর মাস লন্ডনে অবস্থান করছেন। দেশের মানুষ বিচার করবে কোন দল দেশের সংকটে মানুষের পাশে থাকে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এক মাস ধরে চার লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা উখিয়া-টেকনাফে অবস্থান করছে। এখন পর্যন্ত কোথাও কোনো বিশৃঙ্খলার অভিযোগ ওঠেনি। কিন্তু বিএনপি সেখানেও অভিযোগ তুলছে। প্রথমবার নিয়মকানুন মানেনি বলে বিএনপিকে ত্রাণ বিতরণে বাধা দেয় জেলা প্রশাসন। এরপর বিএনপি নেতারা একাধিকবার ত্রাণ দিয়েছেন, সেখানে কিন্তু বাধা দেয়া হয়নি। বিএনপি আসলে নিয়মকানুন না মেনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চায়।

বিএনপি মহাসচিবের প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, রোহিঙ্গা সংকট শুরু হয়েছে এক মাস আগে। এই দীর্ঘ সময়ে তিনি কক্সবাজার আসেননি। দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে এত দিন কেন রোহিঙ্গাদের বাস্তব পরিস্থিতি দেখতে আসেননি, তা দেশের মানুষ জানতে চায়।

 

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে সংসদ আবদুর রহমান বদি, সাইমুম সরওয়ার কমল, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক আলী হোসেন, পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নজিবুল ইসলামসহ আওয়ামী লীগ ও হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

 

এসএস 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়