• ঢাকা রোববার, ২৪ জুন ২০১৮, ১০ আষাঢ় ১৪২৫

মসজিদ-মাদরাসার নামে খাস জমি দখলের হিড়িক

শাহাবুদ্দিন শিহাব
|  ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২০:৩৩ | আপডেট : ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২০:৫৮
রাজধানীর যাত্রাবাড়ী-ডেমড়া সড়কে খানা-খন্দ, ধূলা-বালি আর ময়লা-আবর্জনার কারণে এমনিতেই ভোগান্তির শেষ নেই। তার উপর এই সড়কের খাস জমিতে অনুমতি ছাড়াই মসজিদ-মাদরাসা নির্মাণ হচ্ছে। এর আড়ালে চলছে জমি দখলের হিড়িক। ফলে দিন দিন এই পথে চলাচলকারীদের দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, যাত্রাবাড়ী থেকে ডেমরা পর্যন্ত রাস্তার নির্ধারিত জমিতে ৮ থেকে ১০টি মসজিদ-মাদরাসা গড়ে তুলেছে একটি স্বার্থান্বেষী মহল। মসজিদগুলোকে কেন্দ্র করে চলছে ফুটপাত-রাস্তা দখল ও অবৈধ মার্কেট তৈরিসহ নানা অবৈধ বাণিজ্য।

এর মধ্যে ফ্লাইওভারের নিচে যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তা এলাকায় রাস্তার মাঝখানে দাঁড়িয়ে আছে একটি মসজিদ। ফ্লাইওভার চালু হওয়ার ৫ থেকে ৬ বছর পরও স্থানান্তর হয়নি মসজিদটি। এর ফলে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে এই সড়কে চলাচলকারী যাত্রী-চালক-পরিবহন শ্রমিকদের।

এই সমস্যা সমাধানে সচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি জনগণকে সঙ্গে কাজ করার তাগিদ দিয়েছেন বিশেজ্ঞরা। তাদের মতে, মসজিদ স্থানান্তর করে ধর্মকে হেয় করা রোধ ও ধর্ম বাণিজ্য বন্ধে মুসল্লি, সাধারণ মানুষ ও কর্তৃপক্ষকে একযোগে কাজ করতে হবে।

এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের সাবেক সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট ইয়াদিয়া জামান বলেন, সাধারণ মানুষের অসুবিধা হয় এমন কোনও স্থানে মসজিদ রাখার যুক্তি ইসলাম ধর্মে নেই। ইসলামে কখনোই মসজিদ কোনও সামাজিক অসুবিধার কারণ হয়ে দাঁড়ায় না।  

অন্যদিকে এই এলাকার মানুষের দুর্ভোগ কমাতে রাস্তা-মসজিদসহ সব সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বিলাল।

তিনি বলেন, রাস্তার মাঝে সেসব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান পড়েছে সেগুলো অন্যত্র স্থানান্তর করার উদ্যোগ নিয়েছি। সেখানে সরকারের টাকায় মসজিদ নির্মাণ করে দেয়া হবে।

আরও পড়ুন: 

এসএইচ/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়