• ঢাকা শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫

বইমেলায় মিলছে না চায়ের আড্ডা

কুশল ইয়াসির
|  ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ২০:২৭ | আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১৩:৪৩
একুশে বইমেলাকে ঘিরে দারুণ জমে উঠেছে ব্যস্ততা।প্রিয় বন্ধু কিংবা লেখকের বই প্রকাশের খবর জানতে অনেকেই উন্মুখ। জমজমাট হচ্ছে মেলা। চিরচেনা পরিবেশে লেখক-প্রকাশকদের আড্ডা আছে। তবে নেই চা’এ চুমুক।

মেলায় বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ ও বর্ধিত অংশ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে রয়েছে দুটি খাবার দোকান। দোকানগুলোতে নেই চা পানের সুবিধা। কফির আয়োজন থাকলেও প্রতি কাপের দাম ২০ থেকে ২৫ টাকা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রকাশনার সত্ত্বাধিকারী আরটিভি অনলাইনকে বলেন, মেলা প্রাঙ্গণে প্রতিদিন লেখক, পাঠকসহ অতিথীরা আসছেন। তাদের  আপ্যায়ণের জন্য আমরা চা দিতে পারছি না। যদিও এর আগেও এ সুবিধা ছিল না। তবে একাডেমির মেইন গেটের পাশে ব্যাচেলর স্টাফ কোয়ার্টারের সামনে চা কিনতে পাওয়া যেতো। কিন্তু এবার সে সুবিধাও নেই।

তিনি বলেন, এবার আয়োজনের শেষ দিনে অভিযোগ বাক্সে মেলায় চা বিক্রির আয়োজনের কথা জানাবো।

অঙ্কুর প্রকাশনীর বিক্রয় প্রতিনিধি ইসমাইল বলেন, চায়ের জন্য শাহবাগ, নীলক্ষেত অথবা চানখারপুল মোড়ে যেতে হয়।

এদিকে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে মানিকগঞ্জ পিঠা ঘর রকমারি পিঠার আয়োজন নিয়ে বসেছে।

সত্ত্বাধিকারী নাদিম মাহমুদের ভাই অনিক বলেন, দোকানে পাটিশাপটা, মিষ্টিপোয়া, ঝালপোয়া, নকশি পিঠা, ঝিনুক পিঠা, সিদ্ধপুলি, ভাজাপুলি, ঝালপুলি, তারা পিঠাসহ তিলের নারকেল, ইলিশ সন্দেশ, ঝাল চাপটি পাওয়া যাচ্ছে। ২০ টাকা থেকে ৫০ টাকায় প্রায় ১৫টি আইটেমের পিঠা-পুলি এখানে রয়েছে বলে জানান তিনি।

এছাড়া হাতিরপুলের লবস্টার রেস্টুরেন্ট একাডেমি প্রাঙ্গণে ১২০ টাকায় শিক কাবাব, ২০০ টাকায় চিকেন টিকা, ৯০ টাকা বাটি হালিম, ১২০ টাকায় চিকেন নুডুলস বিক্রি করছে। দোকানটিতে ২০ টাকা কাপ কফিও বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের অংশে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের ফুড কোর্ট রয়েছে। এতে চিকেন বিরিয়ানী ১৫০ টাকা, মিনি ফিস কাটলেট ৮০ টাকা, ফিস বল ২৫ টাকা, ফিস ফিঙ্গার ৫০ টাকা, চিকেন সাসলিক ১০০টাকা, মোগলাই পরটা ৬০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। দোকানটিকে ২৫ টাকা কাপ কফি বিক্রি হচ্ছে।

পর্যটনের নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী আর ইসলাম জানান, মানসম্মত খাবারের চাহিদা মিটাতে কাজ করে যাচ্ছে পর্যটন করপোরেশন। গ্রাহকদের চাহিদার জন্য চা বিক্রির বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

এ বিষয়ে মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব জালাল আহমেদ জানান, ক্রেতা-বিক্রেতাদের খাবারের জন্য তিনটি দোকান বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। চা বিক্রির জন্য তাদের সঙ্গে আলাপ করা হবে।

ওয়াই/ডিএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়