• ঢাকা বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

ভোটের 'ওয়াচডগ’ তারা

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২২ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৪:৩০ | আপডেট : ২২ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৫:০৯
ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে উৎসব আমেজে চলছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ভোট। আর দেশজুড়ে আলোচিত এ ভোট পর্যবেক্ষণে মাঠে রয়েছেন প্রায় দেড় হাজার  দেশি-বিদেশি সাংবাদিক ও পর্যবেক্ষক।

দলীয় প্রতীকে হওয়া প্রথম এই সিটি নির্বাচন নিয়ে সারাদেশের মানুষের রয়েছে ব্যাপক আগ্রহ। আগ্রহের কমতি নেই গণমাধ্যমকর্মী ও পর্যবেক্ষকদের। সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া এ নির্বাচনের চুল-চেরা পর্যবেক্ষণ করে ধারাবাহিকভাবে মিডিয়ায় তুলে ধরছেন তারা।

নির্বাচন কমিশন জানায়, পর্যাপ্ত সাংবাদিক এবং পর্যবেক্ষক ভোট পর্যবেক্ষণ করছেন। এদের মাধ্যমে দেশবাসী জানবে কেমন নির্বাচন হয়েছে। পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পর্যাপ্ত পরিমাণ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন রয়েছে।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ের পরিচালক এসএম আসাদুজ্জামান জানান, নাসিক নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করছেন ১৬টি সংস্থার ৩১৮ জন দেশি ও একটি বিদেশি সংস্থার ২ জন পর্যবেক্ষক। এছাড়া রয়েছেন ১ হাজার ১৪২ জন গণমাধ্যমকর্মী। এদের মধ্যে ৬৮৩ জন টেলিভিশন, ৩২৬ জন প্রিন্ট মিডিয়া এবং ১১৩ জন অনলাইন মিডিয়ার সংবাদকর্মী কাজ করছেন।

তিনি জানান, পর্যবেক্ষক সংস্থাগুলো প্রতি দলের সর্বোচ্চ ৫ জন করে ভ্রাম্যমাণ হিসেবে ভোট পর্যবেক্ষণ করছেন। কোনো কেন্দ্রে বা বুথে স্থায়ীভাবে কোনো পর্যবেক্ষক অবস্থান করতে পারবে না। সংশ্লিষ্ট প্রিজাইজিং কর্মকর্তার অনুমতি সাপেক্ষে স্বল্প সময়ের জন্য ভোট কক্ষে যেতে পারবেন।

নির্বাচন পর্যবেক্ষণ সংস্থাগুলো হলো- জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষণ পরিষদ (জানিপপ), বাংলাদেশ মানবাধিকার সমন্বয় পরিষদ (বামাসপ), ডেমোক্রেসিওয়াচ, আইন সহায়তা কেন্দ্র (আসক) ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, ব্রতী, ইন্সটিটিউট ফর এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (আইইডি), হোসস্টেড রিসোর্স ডেভলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েট, ইনোভেশন ক্যাপিটাল মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি, পলিসি রিসার্চ স্টাডিজ ফাউন্ডেশন, খান ফাউন্ডেশন, সোসাইটি ফর রুরাল বেসিক নিড (স্রাবন), বাংলাদেশ মানবাধিকার সংস্থা ও ফেমা।

৯টি সংস্থার ১৮৫ জন স্থানীয়ভাবে ও এদের মধ্যে সাতটি সংস্থার ১৩৩ জন কেন্দ্রীয়ভাবে ভোট পর্যবেক্ষণ করছেন এছাড়া এশিয়া ফাউন্ডেশনের ২ বিদেশি পর্যবেক্ষকও থাকছেন।

এ নির্বাচনে ৭টি রাজনৈতিক দল হতে ৭ জন মেয়র, ২৭টি সাধারণ ওয়ার্ডে ১৫৬ সাধারণ কাউন্সিলর এবং ৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৩৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ১৭৪ ভোট কেন্দ্রের ১ হাজার ৩০৪টি ভোট কক্ষে মোট ৪ লাখ ৭৪ হাজার ৯৩১ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

নাসিকের ২৭টি ওয়ার্ডের ১শ’ ৭৪ ভোটকেন্দ্রের ১ হাজার ৩শ’ ৪টি ভোটকক্ষে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোট চলবে।

সিটি করপোরেশন হিসেবে যাত্রা শুরুর পর নারায়ণগঞ্জে এটি দ্বিতীয় নির্বাচন। তবে এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে অংশ নিচ্ছেন মেয়র প্রার্থীরা।

কেন্দ্রগুলোর নিরাপত্তায় কাজ করছে পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবিসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সতর্ক টহলে থাকছে আলাদা টিম। নির্বাচনে ১শ’ ৭৪টি কেন্দ্রের মধ্যে ১শ’ ৩৭টিকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ বিবেচনা করে ভোটের দিনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা সাজিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

গেলোবার আওয়ামী লীগের সমর্থন না পেয়ে স্বতন্ত্রপ্রার্থী হিসেবে মেয়র নির্বাচিত হন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। তবে এবার দলের সমর্থন নিয়ে ভোট করছেন নৌকা প্রতীকে। অন্যদিকে, জেলা বিএনপির সভাপতি নির্বাচনে অপারগতা জানালে দলটির সমর্থন পান আলোচিত ৭ খুন মামলার প্রধান আইনজীবী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ ৭ মেয়র প্রার্থী, ২৭টি ওয়ার্ডে ১শ’ ৫৪ জন কাউন্সিলর প্রার্থী ও সংরক্ষিত ৯টি ওয়ার্ডে ৩৮ জন নারী কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এবারের নির্বাচনে ৪ লাখ ৭৪ হাজার ৯শ’ ৩১ জন ভোটার। যার মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৩৯ হাজার ৬শ’ ৬২ এবং নারী ২ লাখ ৩৫ হাজার ২শ’ ৬৯ জন।

ওয়াই/এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়