• ঢাকা মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

৪ ডিসেম্বর

১৯৭১ : পাকিস্তানের পক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের চালাকি

আতিকা রহমান
|  ০৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ০৯:৩৪ | আপডেট : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ০৯:৩৭
৪ ডিসেম্বর চুয়াডাঙ্গা, সিরাজগঞ্জ, শেরপুর, ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড় দখলদারমুক্ত করেন মুক্তিযোদ্ধারা। এদিন ইন্দিরা গান্ধী কলকাতায় এক সমাবেশে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়ার আভাস দেন। অন্যদিকে পাকিস্তানের পক্ষে জাতিসংঘে যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব আনে যুক্তরাষ্ট্র।

একাত্তরের এইদিনে উত্তরাঞ্চলে বেশ কয়েকটি শত্রুঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেন মুক্তিযোদ্ধারা। অথচ জামায়াতে ইসলামীর তৎকালীন আমির মাওলানা মওদুদী ইয়াহিয়াকে আশ্বস্ত করে চিঠি লিখেন, প্রতিটি দেশপ্রেমিক মুসলমানই আছে ইয়াহিয়ার সঙ্গে।

অন্যদিকে বাংলাদেশের অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর কাছে চিঠি পাঠান। ওইদিন বিকেলে কলকাতায় এক সমাবেশে ইন্দিরা গান্ধী বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়ার ইঙ্গিত দিলে ভারতীয় জনগণ তাতে সমর্থন জানায়।

তখনই শুরু হয় বিদেশি ষড়যন্ত্র। পরাজয় নিশ্চিত জেনে ইয়াহিয়া যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব করেন জাতিসংঘে। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেটো দিলে তাতেও থামে না আগ্রাসীদের কূটচাল। নিরাপত্তা পরিষদে হেরে গিয়ে সাধারণ পরিষদে প্রস্তাব তুললে তা পাসও হয়। এ সময় নিউইয়র্কে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল বিভিন্ন রাষ্ট্রের সমর্থন আদায়ে জোর তৎপরতা চালায়।

এতো বাধা উপেক্ষা করে যুদ্ধ অব্যাহত রাখে মুক্তিকামী বাঙালি। ক্রমান্বয়ে জয়ের পথে এগুতে থাকে বাংলার মুক্তি পাগল দামাল ছেলেরা। তার কয়েকদিন পরই আসে বিজয়।

এস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়