শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

শিশুদের ঘাড়ে পা দিয়ে অনেক আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ফায়দা নিতে চেয়েছিল: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ | ৩১ আগস্ট ২০১৮, ১৮:৪৩ | আপডেট: ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:৩০

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মুখে বলার নয়, অনুসরণই গুরত্বপূর্ণ। বঙ্গন্ধুর আদর্শ মেনে চললে দেশের উন্নয়ন সম্ভব। জনগণের জন্য কাজ করলে ইতিহাস তাদের মূল্যায়ণ করবে। বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার বিকেলে গণভবনে ছাত্রলীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পাশাপাশি ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে। জাতির জনকের ৭ মার্চের ভাষণ এখন সারাবিশ্বে স্বীকৃত। দেশ ও দেশের মানুষের উন্নয়ন করা সরকারের প্রধান লক্ষ্য। জাতির জনকের আদর্শ অনুসরণে কাজ করছে সরকার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশে এখনো স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রেতাত্মা ঘুরে বেড়াচ্ছে। ৭৫ এর পরে তারা মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। যার ষড়যন্ত্র এখনো চলছে। সড়ক দুর্ঘটনায় শিশু মারা যাওয়ার পর শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ থেকে আন্দোলনে নামে। কিন্তু শিশুদের ঘাড়ে পা রেখে একদল ফায়দা নিতে চেয়েছিল। এদের মধ্যে অনেকে আছেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন। তাদের উসকানির কারণে অনেক শিশুর প্রাণ যেতে পারতো। অপপ্রচারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কারণে দেশ বিদেশ থেকে চাপ আসছে। আমি স্কুল জীবন থেকে বৈরী পরিবেশে রাজনীতি করেছি। নীতির পক্ষে আপোষ নাই।

তিনি আরও বলেন, আমি ছাত্রলীগের কর্মী হিসাবে কাজ করেছিলাম। ছাত্রলীগকে গড়ে তুলতে হবে একটি আদর্শিক সংগঠন হিসাবে। আদর্শের পতাকা ধারণের মাধ্যমে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে হবে।

আরও পড়ুন :

এমসি/ এমকে