• ঢাকা বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

ঈদ উদ্দেশে বাড়িযাত্রায় সড়কেই থেমে গেল ২৭ প্রাণ

আরটিভি অনলাইন ডেস্ক
|  ২১ আগস্ট ২০১৮, ১৪:০৮ | আপডেট : ২১ আগস্ট ২০১৮, ১৪:২২
ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুই দিনে সারা দেশের পাঁচ জেলায় ২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে নরসিংদীর বেলাবোতে ১১ জন, ফেনীর ছাগলনাইয়ায় ছয়জন, গাইবান্ধার পলাশবাড়ী  উপজেলায় চারজন, গোপালগঞ্জের সদর উপজেলায় দুইজন, মুকসুদপুরে তিনজন ও টাঙ্গাইলে এক পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। আরটিভি অনলাইনের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

নরসিংদী: নরসিংদীর বেলাবোতে বাস-লেগুনা সংঘর্ষে ১১ জন নিহত এবং অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।  উপজেলার দড়িয়াকান্দি এলাকায় সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

বেলাবো থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাভেদ মাহমুদ আরটিভি অনলাইনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : গ্রেনেড হামলায় খালেদা-তারেক সরাসরি জড়িত: প্রধানমন্ত্রী
-------------------------------------------------------

 

তিনি বলেন, ভৈরব থেকে ঢাকাগামী ঢাকা বস পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি যাত্রীবাহী লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে লেগুনাটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। ঘটনাস্থলেই আটজন নিহত হয়। আহতদের জেলা হাসপাতালসহ অন্যান্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিস, থানা পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ এবং স্থানীয়রা উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে। হতাহতদের পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।

নিহতদের মধ্যে পাঁচ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। এরা হলেন সুনামগঞ্জের আজমেরীগঞ্জ উপজেলার আবুল হোসেন (৩০), আবদুল মিয়া (২৪), মোবারক মিয়া (১৮), সুজন মিয়া (২২) ও তার স্ত্রী রাহেলা বেগম (২০)।  নিহত সবাই লেগুনার আরোহী। ঈদ উপলক্ষে তারা বাড়ি যাচ্ছিল।

ফেনী: ফেনীর ছাগলনাইয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নারী-শিশুসহ ছয়জন নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন আরও চারজন।

ফেনী সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার শাহাবুদ্দিন আরটিভি অনলাইনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, নিহতদের মরদেহ মর্গে রাখা হয়েছে। আহতদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

গেল রোববার দিবাগত রাত তিনটার দিকে ছাগলনাইয়ায় উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মুহুরীগঞ্জে সুলতানা ফিলিং স্টেশনের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।


-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : সড়ক দুর্ঘটনায় ঈদআনন্দ মাটি দুই ভাইয়ের
-------------------------------------------------------

 

পুলিশ জানায়, নোয়াখালীর দিকে চট্টগ্রামমুখী একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে ছাগলনাইয়াগামী গরুবোঝাই একটি ট্রাকের সংঘর্ষ হয়। ট্রাকটি মুহুরিগঞ্জ-ছাগলনাইয়া সড়ক থেকে ইউটার্ন করে ছাগলনাইয়া যাচ্ছিল। সংঘর্ষে ছয়জন নিহত হন। এতে ঘটনাস্থলে মাইক্রোবাস ও ট্রাকটির সামনের কিছু অংশ দুমড়ে মুচড়ে রাস্তার পাশে পড়ে যায়।

পুলিশ জানায়, ট্রাকটি উল্টোপথে যাওয়ার চেষ্টা করলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, তিন বছর পর কাতার ফেরত প্রবাসী সবুজকে চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দর থেকে আনতে একটি মাইক্রোবাস ভাড়া করেন পরিবারের সদস্যরা। পরে পরিবারের ১৩ সদস্যকে নিয়ে মাইক্রোবাসটি রোববার দিবাগত রাত ১টার দিকে রওয়ানা দেয় চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে। রাত আনুমানিক আড়াই দিকে মাইক্রোবাসটি ফেনীর মুহুরীগঞ্জ এলাকায় পৌঁছালে গরু বোঝাই একটি ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে মাইক্রোবাসের চালক আব্বাছ মিয়া, প্রবাসী সবুজের দুই শিশু পুত্র শুভ ও নোমান, শাশুড়ি জাহানারা বেগম, ভায়রার মেয়ে পপি আক্তার ও বোন রুনা আক্তারসহ ৬জন ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এ ঘটনায় মাইক্রোবাসের আরও সাত যাত্রী আহত হন।

জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুজজামান হতাহতদের দেখতে হাসপাতালে আসেন।

গাইবান্ধা: গাইবান্ধার পলাশবাড়ী সদর উপজেলায় রংপুর-বগুড়া মহাসড়কে বাসচাপায় বাবা-ছেলে এবং সিএনজিচালকসহ ৪ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় সিএনজিতে থাকা অপর ২ যাত্রী গুরুতর আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- পলাশবাড়ী উপজেলা সদরের উদয়সাগর গ্রামের আব্দুল হান্নান (৬০), তার ছেলে মোহাম্মদ (১০), সাদুল্লাপুর উপজেলা ইদিলপুর ইউনিয়নের মহিপুর বাজারের সিএনজিচালক সুমন (২৬) ও একই উপজেলার খোর্দ্দকোমরপুর ইউনিয়নের জানিপুর গ্রামের আরজিনা বেগম (২৮)।

সোমবার বিকেল ৫টার দিকে উপজেলা সদরের রংপুর-বগুড়া মহাসড়কের মহেশপুরে ব্র্যাক অফিসের উত্তর পাশে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, রংপুর থেকে সিরাজগঞ্জগামী জেরিন এন্টারপ্রাইজের একটি বাস ওই স্থানে পৌঁছালে ধাপেরহাট থেকে পলাশবাড়ী অভিমুখে আসা একটি সিএনজিকে ওভারটেক করার সময় চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই সিএনজি চালকসহ ৩ জন নিহত হয়। এ ঘটনায় সিএনজিতে থাকা অপর ২ যাত্রীকে গুরুতর আহত হন। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অপর ১ যাত্রী মারা যান।

ঘটনার পর বাসচালক পলাশবাড়ী এসে বাস থামিয়ে সটকে পড়েন। তবে হাইওয়ে পুলিশ বাসটিকে উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে তৎক্ষনাৎ পলাশবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেজবাউল হোসেন, হাইওয়ে থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও উদ্ধার কাজ করেন।


-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : ভয়াল ২১ আগস্ট আজ
-------------------------------------------------------

 

গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় একটি যাত্রীবাহী বাস ও প্রাইভেটকারের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুই ভাই নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও একজন।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে উপজেলার গোপিনাথপুর উত্তরপাড়া কাজী হাউজের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন বাগেরহাটের মোল্লাহাট উপজেলার মুলঘর গ্রামের সরদার আতিয়ার রহমানের ছেলে এমএম আরাফাত হোসেন প্রিন্স (৩৬)। তিনি রুপালী ব্যাংকের সাউথ ডিভিশন মতিঝিলের সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার ছিলেন। অপরজন খুলনা সোনাডাঙ্গার ময়লাপোতার শিমুল (৪০)। সম্পর্কে তারা মামাতো-ফুফাতো ভাই।

গোপালগঞ্জের গোপীনাথপুর তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক মো. আবুল বাশার হাওলাদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী প্রাইভেটকারটি গোপিনাথপুর উত্তরপাড়ায় পৌঁছালে গোপালগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী সেবা গ্রিনলাইন যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে প্রাইভেটকারের দুই আরোহী ঘটনাস্থলে নিহত হন। অপরজন গুরুতর আহত হন।

মুকসুদপুর (গোপালগঞ্জের): মুকসুদপুর উপজেলার ছাগলছিড়ায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস রাস্তার পাশে খাদে পড়ে ঘটনাস্থলেই ৩ যাত্রী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ৩৫ জন যাত্রী। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে ২০ জনকে মাদারীপুরের রাজৈর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের বিভিন্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ও হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হযেছে।

নিহতদের মধ্যে রোজিনা বেগম (২৫) নামে একজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তার বাড়ি মুকসুদপুর উপজেলার বরৈতলা এলাকার বর্নি গ্রামে।

ভাংগা হাইওয়ে পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহফুজুর রহমান দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ফরিদপুর থেকে ছেড়ে আসা একটি লোকাল বাস ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার ছাগলছিড়া নামক স্থানে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদে পড়ে যায়। এতে তিন যাত্রী নিহত ও অপর ৩৫ জন আহত হন।

মাদারীপুরের রাজৈর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার প্রদীপ চন্দ্র মন্ডল জানান, মারাত্মক আহত সাতজনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।  চারজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। নয়জনকে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে।

টাঙ্গাইল: ঈদে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফেরার পথে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বাসচাপায় তুহিন আলী (৩৩) নামে পুলিশের এক সদস্য নিহত হয়েছেন। সোমবার এ দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি।

তুহিন আলী ঢাকায় পুলিশের এসবিতে কর্মরত ছিলেন। তার পিতার নাম মো. আকছাদ আলী, বাড়ি রাজশাহী জেলার  চারঘাট উপজেলার ইউসুফপুর গ্রামে।

আজ মঙ্গলবার গোড়াই হাইওয়ে থানা পুলিশ সূত্র জানায়, ঢাকা থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে তুহিন বাড়ি ফিরছিলেন। কদিমধল্যা নামক স্থানে রাস্তা থেকে ছিটকে পড়েন তিনি। এসময় দ্রুতগামী একটি বাস চাপা দিলে তিনি গুরুতর আহত হন। আহতবস্থায় কুমুদিনী হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

 

আরও পড়ুন :

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়