• ঢাকা শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫

কুরবানির জন্য ডিএনসিসি’র ৫৪৯ স্থান নির্ধারণ

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ২০ আগস্ট ২০১৮, ১৮:২৫ | আপডেট : ২০ আগস্ট ২০১৮, ১৮:৫৫
এবারের ঈদুল আজহায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকায় কুরবানি করার জন্য ৫৪৯টি স্থান নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। এসব স্থানে দুই লাখ ৩২ হাজার পশু কুরবানি হবে বলে ধারণা করছে ডিএনসিসি। কুরবানির এ সংখ্যা গত বছরের তুলনায় ১১ হাজার বেশি।

সোমবার ঈদুল আজহায় সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে ডিএনসিসি প্যানেল মেয়র জামাল মোস্তফা এ তথ্য জানান। সংবাদ সম্মেলন শেষে সচেতনতামূলক র‌্যালি বের করা হয়।

প্যানেল মেয়র বলেন, ঈদুল আজহায় সুষ্ঠুভাবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা করা একটি চ্যালেঞ্জিং কাজ। তবে নাগরিকরা যেন ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে নির্বিঘ্নে পবিত্র ঈদের আনন্দ উদযাপন করতে পারেন সে লক্ষ্যে ডিএনসিসি এরইমধ্যে সর্বাত্মক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। এবছর সিটি করপোরেশনের আওতাধীন ১০টি পশুর হাট নির্ধারণ করা হয়েছে।

-------------------------------------------------------
আড়ো পড়ুন : মানবপাচারের গডফাদার গ্রেপ্তার: সিআইডি
-------------------------------------------------------

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকায় আনুমানিক দুই লাখ ৩২ হাজার পশু কুরবানি দেয়া হবে, যা গত বছরের তুলনায় প্রায় ১১ হাজার বেশি। কুরবানির পশু জবাই করার জন্য ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এ বছর ৫৪৯টি স্থান নির্ধারণ করেছে। এর মধ্যে ১৮৩টি স্থানে নগরবাসীকে কুরবানি দেয়ার জন্য প্যান্ডেলসহ বিভিন্ন সুবিধার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এছাড়া কুরবানি করা যাবে এরকম ৩৫৬টি স্থান চিহ্নিত করা আছে।

অন্যদিকে রাস্তার উপর কিংবা ড্রেনের পাশে কুরবানি না করার জন্য বিশেষ সচেতনতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। কুরবানির জন্য সর্বমোট ৮০০ জন ইমাম ও ৫০০ জন মাংস প্রস্তুতকারীকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পবিত্র ঈদুল আজহায় পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম তদারকি ও ত্বরিৎ অপসারণ কাজের স্বার্থে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ওয়ার্ডভিত্তিক দায়িত্ব দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

জামাল মোস্তফা বলেন, জনসচেতনতা বাড়ানোর জন্য ৩ লাখ ৬৫ হাজার লিফলেট বিতরণ, প্রতিটি ওয়ার্ডে মাইকিং, প্রতিটি মসজিদের ইমামদের মাধ্যমে নামাজের পর ও জুমা’র খুতবার সময় কুরবানি পশু জবাই ও বর্জ্য অপসারণ বিষয়ে মুসল্লিদের উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। তাছাড়া রেডিও, টেলিভিশন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

কুরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণে আঞ্চলিক কার্যালয়, অঞ্চল-৩ (মহাখালী)-এ অস্থায়ী কেন্দ্রীয় কন্ট্রোল রুম স্থাপন করা হয়েছে। কন্ট্রোল রুমের টেলিফোন নম্বর ৯৮৩০৯৩৬। তাছাড়া ৫টি আঞ্চলিক কার্যালয় ও ৩৬টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের অফিস কন্ট্রোল রুম হিসেবে ব্যবহার করা হবে।

এছাড়া দ্রুত বর্জ্য অপসারণ ও এ সংক্রান্ত সহযোগিতার জন্য কেন্দ্রীয় কন্ট্রোল রুম ছাড়াও নিম্নলিখিত মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে: অঞ্চল-১ (উত্তরা) ০১৭১৭১০২০২৫; অঞ্চল-২ (মিরপুর) ০১৭১১৩১৩২৮৯; অঞ্চল-৩ (মহাখালী) ০১৯২৩১১৩৬৩৬; অঞ্চল-৪ (মিরপুর) ০১৭৩৩৮৯৫৫৩২; অঞ্চল-৫ (কারওয়ান বাজার) ০১৭১১৫৭৭৪৭৪।

এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়