বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকীতে দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করলো আরটিভি

প্রকাশ | ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১৫:১৮ | আপডেট: ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১৬:০৪

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট

প্রতিবারের মতো এবারও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করেছে আরটিভি পরিবার।

বৃহস্পতিবার দুপুরে আরটিভির প্রধান কার্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দুস্থদের মাঝে এ খাবার বিতরণ করা হয়। এর আগে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, আরটিভিকে ধন্যবাদ দিচ্ছি যে, বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকীতে দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করেছে। এ কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতির পিতার দর্শন ও স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করবেন এটি আমাদের প্রত্যাশা। জাতির পিতা সবসময় নিপীড়িত মানুষের জন্য কাজ করেছেন। তিনি স্পষ্ট ভাষায় সব সময় বলেছেন বিশ্ব দুই ভাগে বিভক্ত শোষক এবং শোষিত।

তিনি বলেন, শোষিত মানুষের পক্ষে জাতির জনক কাজ করে গেছেন। আমরা জাতির জনককে সেদিন রক্ষা করতে পারিনি। কিন্তু জাতির পিতার দর্শন ক্রমন্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। জীবিত মুজিবের চেয়ে মৃত মুজিব অনেক শক্তিশালী। জাতির পিতার দর্শনের যে অমরত্ব তা প্রকাশ করে।

আরটিভির ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসিম উদ্দিন বলেন, বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ স্বাধীন না করলে বাংলাদেশে আজ বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান থাকতো না। আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করতে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়। আমরা নৈতিকতার জায়গা থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী পালন করি। আরটিভি চেষ্টা করে দেশ কেন স্বাধীন হয়েছে তা দর্শকের কাছে তুলে ধরার জন্য।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি বলেন,  বঙ্গবন্ধু যে সাহস এবং প্রতিভা তার জীবনে দেখিয়েছেন, আমরা যদি সেই সাহস ও স্বপ্ন লালন করে এ দেশকে বিনির্মাণ করতে পারি তাহলে বঙ্গবন্ধুকে আমরা সঠিকভাবে ভালোবাসতে পারবো। 

আরটিভির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ আশিক রহমান বলেন, আরটিভি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় কাজ করে। মুক্তিযুদ্ধকে ধারণ করে। দেশের স্বাধীনতাকে ধারণ করে। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন আমি শোষকের নয়, শোষিতদের পক্ষে। শোষিতদের জন্যই আমাদের কাজ করা। মানুষের জন্য কাজ করা। বঙ্গবন্ধু মানুষকে ভালোবাসতেন। আমরা এ ভালবাসাকে লালন করে কাজ করে যাচ্ছি।

স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মোহাম্মদ আবু কাওছার বলেন, বঙ্গবন্ধু রক্ত দিয়েছেন বাংলাদেশের মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায়। অপশক্তির বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী চেষ্টা করছেন বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে। সব শ্রেণি-পেশার মানুষ আজ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শামিল হয়েছেন।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, আইনজীবী স.ম. রেজাউল করিম, সাংবাদিক সুভাস সিংহ রায়সহ আরটিভির পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছাড়াও ঘাতকের বুলেটে নিহত হন তার স্ত্রী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শেখ রাসেল, পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, ভাই শেখ আবু নাসের, ভগ্নীপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, ভাগনে শেখ ফজলুল হক মনি, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মণি এবং বঙ্গবন্ধুর জীবন বাঁচাতে ছুটে আসা কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও ঘনিষ্ঠজন। এদিন দেশের বাইরে থাকায় ঘাতক চক্রের হাত থেকে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

এমসি/জেএইচ