• ঢাকা বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

নৌমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবিতে ফের রাস্তায় শিক্ষার্থীরা (ভিডিও)

অঘোষিত পরিবহন ধর্মঘটে বিপাকে রাজধানীবাসী

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০১ আগস্ট ২০১৮, ১০:৪৬ | আপডেট : ০১ আগস্ট ২০১৮, ১২:৩৭
আজও রাস্তায় নেমেছে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। সকাল ১০টার দিকে ফার্মগেটে সড়কে অবস্থান নিয়েছে বিজ্ঞান কলেজের শিক্ষার্থীরা। এসময় মিরপুর, গাবতলী ও উত্তরা থেকে গুলিস্তান-মতিঝিলগামী বাস ও প্রাইভেটকার চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ ও ঘাতক বাসচালকের ফাঁসিসহ ৯ দফা দাবিতে রাজধানীর কয়েকটি স্থানে গত দুই দিনে বাসে আগুন এবং যানবাহন ভাঙচুরের কারণে আজ বুধবার সকাল থেকে বাস সরিয়ে নিয়েছেন পরিবহন মালিকরা। এতে পরিবহন সংকটের কারণে বুধবার সকাল থেকে বিপাকে পড়েছেন রাজধানীর কর্মজীবী মানুষ।

বুধবার সকালে মতিঝিল, গুলিস্তান, শাহবাগ, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট, মিরপুর, কল্যাণপুর, শ্যামলী, আগারগাঁও, মহাখালী, উত্তরা, ফার্মগেট এলাকা ঘুরে দেখা যায়, হাজার হাজার মানুষ বাসের জন্য অপেক্ষা করছেন। থেকে থেকে দু’একটি বাস এলেও তাতে সবাই উঠতে পারছেন না।

সবশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত, কলাবাগান, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, তাঁতীবাজার, মহাখালী বিএএফ শাহীন কলেজের সামনে ছাড়াও ফার্মগেট, বাংলামোটর, ঢাকা কলেজ, যাত্রাবাড়ী ও উত্তরার হাউজ বিল্ডিংয়ের সামনে রাস্তা অবরোধ ও গাড়ি ভাঙচুর করেছে শিক্ষার্থীরা।

সকাল থেকে অফিসমুখী যাত্রী, স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের পায়ে হেঁটে ও রিকশায় যেতে হচ্ছে। সড়ক ছিল প্রায় ফাঁকা। তবে দূরপাল্লার বাস ও ট্রেন চলতে দেখা গেছে।

---------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন  : লাইসেন্সবিহীন চালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশ
---------------------------------------------------------------

সকালে কল্যাণপুরে বাসের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকা রাসেল মিয়া জানান, সকাল সাড়ে ৮টা থেকে দাঁড়িয়ে আছি। কোনও বাস পাচ্ছি না। ১০টায় অফিস টাইম। কখন অফিসে পৌঁছাব কে জানে?

রাজধানীর বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের যানবাহনের অভাবে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। অনেক শিক্ষার্থীকে নিয়ে অভিভাবকরা যানবাহনের অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থেকে না পেয়ে বাসায় ফিরে গেছেন।

এমন একজন মিরপুরের কাজীপাড়ার ফিরোজ সারোয়ার আরটিভি অনলাইনকে বলেন-প্রায় ঘণ্টাখানেক ধরে দাঁড়িয়ে আছি ছেলেকে নিয়ে। কোনও গাড়ি-সিএনজি-রিকশা কিচ্ছু পাচ্ছি না। তাই ছেলেকে নিয়ে আজ আর স্কুলে যাওয়া হচ্ছে না। বাসায় ফিরে যাচ্ছি।

ফার্মগেটের এশিয়া প্যাসিফিক ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী রাত্রি খাতুন বলেন, আমার বাসা মিরপুরে। আমি অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে তারপর একটি বাসে অনেক কষ্টে ক্যাস্পাসে এসেছি।

গতকাল মঙ্গলবার শিক্ষার্থীরা মতিঝিল শাপলা চত্বরসহ যাত্রাবাড়ী থেকে উত্তরা পর্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সড়কের ২০টি পয়েন্ট অবরোধ করে। এদিন সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত অবরোধ ও বিক্ষোভ চলে। এ সময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা উত্তরা এবং নিউমার্কেট এলাকায় তিনটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দেয়। পাশাপাশি তারা বিভিন্ন সড়কে যানবাহন ভাঙচুরও করে। মিরপুর ও উত্তরায় বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ শিক্ষার্থীদের সড়ক থেকে সরিয়ে দিতে লাঠিপেটা করে। মিরপুরে পুলিশের লাঠিপেটায় তিন শিক্ষার্থী আহত হয়।

রোববার বাসচাপায় শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়। আহত হয় আরও ১০-১২ জন শিক্ষার্থী। এ ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার তৃতীয় দিনের মতো শিক্ষার্থীরা রাজপথে নেমে এলে পুরো ঢাকা স্থবির হয়ে পড়ে। আজও একই কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নেমেছে শিক্ষার্থীরা।

বনশ্রীর আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে সড়ক অবরোধ
রাজধানীর বনশ্রীর আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনের সড়ক অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা। আজ বুধবার সকাল ১১টার দিকে নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের পদত্যাগ ও ঘাতক বাসচালকের ফাঁসিসহ ৯ দফা দাবিতে তারা মিছিল বের করেন। এসময় শিক্ষার্থীরা রোববার বাসচাপায় নিহত শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুই শিক্ষার্থী মৃত্যুর বিচারসহ নৌমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করে বিভিন্ন স্লোগান দেন।
এদিকে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন যৌক্তিক দাবি করে, তাদের শান্ত হয়ে ক্যাম্পাসে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানান।

আরও পড়ুন  : 

পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়