• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

৬ ঘণ্টা পর রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ৩০ জুলাই ২০১৮, ১৭:২৩ | আপডেট : ৩০ জুলাই ২০১৮, ১৭:৪০
বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর প্রতিবাদে অবরোধ করে রাখা রেল যোগাযোগ ফের সচল হয়েছে। ৬ ঘণ্টা পর শিক্ষার্থীরা তাদের অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়। বর্তমানে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক রয়েছে।

রেলওয়ে পুলিশ হেডকোয়ার্টাসের টেলিফোন অপারেটর কনস্টেবল শাহাজাহান বিষয়টি আরটিভি অনলাইনকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, অবরোধ উঠে যাওয়ার পর থেকে শেওড়া দিয়ে বেশ কয়েকটি ট্রেন চলাচল করে।

এর আগে বেলা ১টার দিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা শেওড়া রেলগেটে রেললাইনের উপরে অবস্থান নেয়। নিরাপত্তাজনিত কারণে দুপুর দেড়টা থেকে ঢাকার সঙ্গে সব ধরনের রেল চলাচল বন্ধ রেখেছে রেল কর্তৃপক্ষ। এসময় রাজশাহী গামী সিল্কসিটির একটি ট্রেন কয়েক ঘন্টাব্যাপী আটকা পড়ে।

সোমবার দুপুরে ক্যান্টনমেন্ট রেলস্টেশনের স্টেশন মাস্টার মোজাম্মেল হোসেন এ খবর নিশ্চিত করেন।

এর আগে নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের বক্তব্য প্রত্যাহার করে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা এবং বেপরোয়া গাড়ি চালকদের ফাঁসির দাবিসহ ৯ দফা দাবি জানিয়ে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেয় আন্দোলনকারীরা।

শহীদ রমিজ উদ্দিন কলেজের শিক্ষক, র‌্যাব-পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের রাস্তা ছেড়ে দেয়ার অনুরোধ জানালেও বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা অবরোধ কর্মসূচিতে অনড় থাকে।

র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপস) আনোয়ার লতিফ খান শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন- ‘গতকালের দুর্ঘটনার পর থেকে আজ দুপুর পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে জড়িত তিনটি বাসের তিনজন ড্রাইভার ও দুইজন সহকারীকে আটক করা হয়েছে। দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

সোমবার (৩০ জুলাই) সকাল ১০টার দিকে শিক্ষার্থীরা শহীদ রমিজ উদ্দিন কলেজের সামনের রাস্তায় মানববন্ধনে দাঁড়াতে গেলে পুলিশের বাধায় শুরুতে তাদের কর্মসূচি পণ্ড হয়ে যায়। এরপর কুর্মিটোলা হাসপাতালের সামনে রাস্তা অরবোধ করতে গেলে সেখান থেকেও ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের সরিয়ে দেয় পুলিশ। এরপর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শহীদ রমিজ উদ্দিন কলেজের সামনে ফের জড়ো হয়ে শিক্ষার্থীরা রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করে। এ সময় তাদের চারপাশ থেকে ঘিরে রাখেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা এসে বিক্ষোভে অংশ নিতে থাকে। দুপুর ১২টা নাগাদ বিএএফ শাহীন কলেজ, ভাষানটেক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আদমজী ক্যান্টনমেন্ট, তেজগাঁও কলেজ, বাংলা কলেজ, সরকারি বিজ্ঞান কলেজসহ আশপাশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভে অংশ নিয়ে বিমানবন্দর সড়কের উভয় পাশ বন্ধ করে দেয়।

উল্লেখ্য, গতকাল রোববার (২৯ জুলাই) কুর্মিটোলায় বাস চাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন কলেজের দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। এ ঘটনায় আহত হয় আরও ৮-১০ জন।

এমসি/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়