• ঢাকা বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

স্কুল মাঠে বালি-সিমেন্ট-বিটুমিন, ছুটল দুদক

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১০ জুলাই ২০১৮, ১৯:১৪
বিদ্যালয় মাঠেই বিটুমিন গলানোর কাজ, রড, পাথর ও বালি মেশানোর প্লান্ট মেশিন চলছে। প্রচণ্ড ধুলাবালি, কালো ধোঁয়া, শব্দ ও বিটুমিনের তীব্র গন্ধে নষ্ট হচ্ছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান। সেই সঙ্গে বাড়ছে স্বাস্থ্য ঝুঁকি। এমন অভিযোগ পেয়ে ছুটেছে দুর্নীতি দমন কমিশন- দমন।

নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার স্বরূপপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার দোলাপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটেছে।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য আরটিভি অনলাইনকে বলেন,  নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার স্বরূপপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বিপুল পরিমাণ  সড়ক নির্মাণ কাজের সামগ্রী দিয়ে দখল এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ বিনষ্ট করার বিরুদ্ধে দুদক তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নেয়। 

দুদকের হটলাইনে (১০৬) অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাৎক্ষণিকভাবে নাটোরের বাগাতিপাড়া ইউএনওকে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন দুদক মহাপরিচালক মুনীর চৌধুরী।

অভিযোগে জানা যায়, বিদ্যালয় মাঠেই বিটুমিন গলানোর কাজ ও পাথর ও বালি মেশানোর প্লান্ট মেশিন চালানোয় প্রচণ্ড ধুলাবালি, কালো ধোঁয়া, শব্দ ও বিটুমিনের তীব্র গন্ধে শিক্ষার্থীদের পাঠদান মারাত্মকভাবে ক্ষুণ্ণ হয় এবং ব্যাপক স্বাস্থ্য ঝুঁকি সৃষ্টি হয়।

দুদকের নির্দেশনা মোতাবেক এলজিইডি কর্তৃপক্ষকে অবিলম্বে স্কুল চত্বর হতে সব নির্মাণ সামগ্রী দ্রুত সরানোর নির্দেশনা দেয়া হয়।

এসব নির্মাণসামগ্রী অপসারণের পর বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং গভর্নিং বডির সভাপতিকে ইউএনও কার্যালয়ে ডেকে আনা হয়। 

তারা এর দায়দায়িত্ব স্বীকার করায় মুচলেকা নেয়া হয়, ভবিষ্যতে এ অন্যায় কাজ হতে তারা বিরত থাকবেন।

একই সঙ্গে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার দোলাপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ও একই ভাবে অবৈধ দখলকৃত হলে গত সোমবার দুদকের নির্দেশে নির্মাণ সামগ্রী অপসারণ করে বিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনা হয়েছে। স্থানীয় ইউএনও এ কাজে সহায়তা প্রদান করেন।

এ প্রসঙ্গে দুদকের মহাপরিচালক (প্রশাসন) মোহাম্মদ মুনীর চৌধুরী জানান, এভাবে স্কুল দখল করে শিক্ষার পরিবেশ ধ্বংস করা এক প্রকার দুর্নীতি। জনগণের দাবির প্রেক্ষিতে স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তায় দুদক এখানে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছে।

এসআর

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়