সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতির তথ্য ‘ভিত্তিহীন’

প্রকাশ | ০১ জুলাই ২০১৮, ২০:৩৬ | আপডেট: ০১ জুলাই ২০১৮, ২১:১৯

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট

ঈদের আগে ও পরে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে যাত্রী কল্যাণ সমিতির দেয়া তথ্য ‘ভিত্তিহীন’ বলে জানিয়েছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ।

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে এই সমিতির দেয়া ভুল ও ভিত্তিহীন তথ্যে জনগণকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্যও অনুরোধ জানানো হয়েছে।

আজ(রোববার) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ‘সম্প্রতি যাত্রী কল্যাণ সমিতি নামে একটি সংগঠন এক সংবাদ সম্মেলনে ঈদের আগে-পরে ১৩ দিনে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৩৯ জন নিহত হয়েছে বলে উল্লেখ করে, যা সঠিক তথ্য নয়।

প্রকৃতপক্ষে বিআরটিএ’র জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন অফিস, পুলিশ রেকর্ড এবং সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে গত ১২ জুন থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত দেশব্যাপী ১০৩টি সড়ক দুর্ঘটনায় ১৫২ জন নিহত এবং সাড়ে ৩শ’জন আহত হন।’

-------------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : ঘোষণার অতিরিক্ত পণ্য আমদানি করায় চালান আটক
-------------------------------------------------------------------------

যাত্রী কল্যাণের নামে নিবন্ধনহীন এ সংগঠন বিভিন্ন সময়ে সংবাদ সম্মেলনে বিভ্রান্তিকর তথ্য উপস্থাপন করে আসছে উল্লেখ করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিভিন্ন পেশার সম্মানিত ব্যক্তিদের নিবন্ধনহীন এ সংগঠন কৌশলে সংবাদ সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানায়। সড়ক দুর্ঘটনা বিষয়ক তথ্যাদি উদ্দেশ্যমূলকভাবে বাড়িয়ে উপস্থাপন করে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে এই সংগঠন।

সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনারোধে প্রধানমন্ত্রীর প্রদত্ত ৫ দফা অনুশাসন বাস্তবায়নে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সকল স্টেক-হোল্ডারদের নিয়ে কার্যক্রম জোরদার করতে যাচ্ছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

এতে আরও বলা হয়, এসডিজি’র লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ২০২১ সালের মধ্যে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা অর্ধেকে নামিয়ে আনতে মন্ত্রণালয় সচেষ্ট। সড়ক-মহাসড়কের নির্মাণজনিত ত্রুটি দূর করার পাশাপাশি ট্রাফিক আইন মেনে চলতে জনসচেতনতার বিকল্প নেই।

এতে বলা হয়, সড়ক ব্যবহারকারীদের সচেতনতা বাড়াতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি অংশগ্রহণ আরও জোরদার করা জরুরি। এরই মধ্যে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উদ্যোগে দেশের সড়ক-মহাসড়কের দুর্ঘটনাপ্রবণ স্পটসমূহ ডিভাইডারসহ প্রশস্তকরণের কাজ প্রায় শেষ হতে চলেছে।

 

আরও পড়ুন :

    বিদেশ ফেরত নারী শ্রমিকদের ন্যায্য ক্ষতিপূরণে দাবি টিআইবির

জেএইচ