ওদের জীবনেও ঈদ এসেছিল সেদিন

প্রকাশ | ০৬ জুন ২০১৮, ১৮:৪০ | আপডেট: ১০ জুন ২০১৮, ১৭:২৫

সিয়াম সারোয়ার জামিল, আরটিভি অনলাইন

সবার ঘরেই ঈদকে সামনে রেখে নতুন জামা কেনার ধুম পড়ে। ঈদের দিন বাসায় সেমাই, পোলাও, গোশতো, ফিরনী, কোরমা আরো কত মুখরোচক খাবার রান্না হয়। কিন্তু পথশিশুদের জীবনে কী এমন দিন আসে? ঈদের দিন ঠিকই আসে, আসে না কেবল আনন্দ। এমনই সুবিধাবঞ্চিত পথশিশুদের জীবনে ঈদের আনন্দ নিয়ে এসেছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন স্বপ্নালোড়ন।

বুধবার ধানমন্ডির নিউ মডেল স্কুল মাঠে ছিল স্বপ্নালোড়নের ঈদ আয়োজন। সেখানে এসেছিল ৭ বছরের পরী। সে জানেই না কে তাদের বাবা-মা। পথই ওর ঠিকানা। দিনভর পথে পথে ঘুরে বেড়ায়, কারো ফরমাস খাটে, অনেক দিন ভাগ্যে সামান্য খাবারটুকুও জোটেনা। ঈদে নতুন জামা কাপড় যেন কল্পনা। রাতে ঘুমায় যাত্রী ছাউনী কিংবা বস্তিতে।  

তবে এবার ঈদটা হবে ভিন্ন। স্বপ্নালোড়নের কর্মীরা তাকে নতুন পোশাক দিয়েছে। দিয়েছে খাবারও। তাই সে খুবই খুশি। জানালো, এবারই প্রথম ঈদের নতুন পোশাক পেলো সে। ভাইয়া-আপুরা দিয়েছে খাবারও। পাশাপাশি ঈদ আয়োজনের অনুষ্ঠানটিও তার ভালো লেগেছে। 

পথশিশুদের এই আয়োজনে শরিক হয়েছিলেন জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমন ও সাবেক ক্রিকেটার মোহাম্মদ আশরাফুল। এ ধরনের কর্মসূচিতে উপস্থিত হতে নিজেকে সৌভাগ্যবান বলে দাবি করেন হাবিবুল বাশার সুমন। তিনি বলেন, সবাই স্বপ্ন দেখে, কিন্তু সেটাকে আলোড়িত সবাই করতে পারেনা বা ধরে রাখতে পারেনা।

তিনি বলেন, স্বপ্নালোড়নের স্বেচ্ছাসেবকদের দেখে খুব ভালো লাগছে যে ওরা সেটা পারছে। সবার একটু আবেগ, একটু সহমর্মিতা, মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি এই শিশুদের জীবন বদলে দেবে। সবার দায়িত্ববোধই পারে এই শিশুদের মুখে একদিন হাসি ফোটাতে। সমাজের সব শ্রেণি পেশার মানুষকে এদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান তিনি।

এ বিষয়ে স্বপ্নালোড়নের কর্মী সোমাইয়া শরীফ শাওন বলছিলেন বেশ যুক্তি দিয়েই। তিনি বলেন, ঈদের নতুন কাপড়, একটু খাবার, সুবিধা নয়, তাদের অধিকার। কিন্তু সেটাই তারা পায় না। বঞ্চিত হয় বারবার। স্বপ্নালোড়ন এই শিশুদের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতেই ঈদ আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে।

স্বপ্নালোড়নের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম সোহাগ আরটিভি অনলাইনকে বলেন, শিশুদের প্রতি ভালবাসা থেকেই আমরা কাজ করি। পথশিশুদের বিনোদনের তেমন কোনো সুযোগ নেই।  তাদের ঈদও সেভাবে পালিত হয়না। আমরা এই কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে পথশিশুদের মাঝে উৎসবের পরিবেশ তৈরির চেষ্টা করেছি। 

এসজে