• ঢাকা রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫

ঋণ কেলেঙ্কারি: অসুস্থ বলে ২ মাস সময় চাইলেন বাচ্চু

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০৭ মে ২০১৮, ১২:২৭ | আপডেট : ০৭ মে ২০১৮, ১২:৩২
ছবি সংগৃহীত
প্রায় সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকার ঋণ কেলেঙ্কারি নিয়ে অভিযোগের মুখে থাকা বেসিক ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল হাই বাচ্চু অসুস্থ বলে দুই মাস সময় চেয়েছেন। কিন্তু দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক) তাকে এক সপ্তাহ সময় দিয়ে ১৫ মে তলব করেছে।

আজ সোমবার তার দুদকের হাজির হওয়ার কথা ছিল।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব ভট্টাচার্য্য আরটিভি অনলাইনকে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আব্দুল হাই বাচ্চুকে আজ সোমবার পঞ্চম বারের মতো জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হয়েছিল।

কিন্তু তিনি আইনজীবীর মাধ্যমে দুই মাসের সময় আবেদন করেন। সে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে ৭ দিনের সময় দিয়েছে দুদক। আগামী ১৫ মে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের দিন ঠিক করা হয়েছে।

এরইমধ্যে ব্যাংকটির বড় অংকের ওই ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় ওই সময়কার ১৩ পরিচালককে আলাদাভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুদক।

--------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : মায়ের কোল পেল ধান ক্ষেতে ফেলে যাওয়া নবজাতক
--------------------------------------------------------

বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের কয়েক দফা পর্যবেক্ষণ আসার পর ব্যাংকটির সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হাই বাচ্চুকে জিজ্ঞাসাবাদের উদ্যোগ নেয় দুদক।

২০০৯-২০১৪ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত বাচ্চুর নেতৃত্বাধীন পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা (পরিচালক) এই অর্থ আত্মসাতের দায়ে অভিযুক্ত। তবে এখনও এই কেলেঙ্কারির কোনো সমাধান হয়নি। চার হাজারের মধ্যে দুই হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করা ৫৬টি মামলা তদন্তের মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে দুদক। বাকি প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকা আত্মসাতের বিষয়ে এখনও অনুসন্ধানই শুরু হয়নি।

২০১৭ সালে নভেম্বর থেকে চলতি বছরের এপ্রিল পর্যন্ত ছয় মাসে পর্ষদের ১৩ সদস্যকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তারা বাচ্চুর নেতৃত্বে ২০০৯ থেকে ২০১৪ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত দুই মেয়াদে পর্ষদের দায়িত্ব পালন করেছেন। তবে ওই সময়ের পর্ষদের সদস্য সচিব ও সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ফখরুল ইসলাম পলাতক থাকায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা সম্ভব হয়নি।

জাতীয় পার্টির সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল হাই বাচ্চুকে ২০০৯ সালে বেসিক ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেয় সরকার। ২০১২ সালে তার নিয়োগ নবায়নও হয়। কিন্তু ঋণ কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠলে ২০১৪ সালে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ফখরুল ইসলামকে অপসারণ করার পর পদত্যাগ করেন বাচ্চু।

আরও পড়ুন :

এমসি/এসআর

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়