• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৮ | ০৬ বৈশাখ ১৪২৫

দেশজুড়ে পালিত হচ্ছে মহান বিজয় দিবস

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ১১:৩৪ | আপডেট : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৬:০৬
আজ ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। বিজয়ের ৪৬তম বার্ষিকীতে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে ঢল নেমেছে মানুষের। 

দেশজুড়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে দিনটি।   

আজ শনিবার প্যারেড গ্রাউন্ডে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিজয় দিবসের আনুষ্ঠানিকতা। সকাল সাড়ে ৬টার পর রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফুল দিয়ে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে বেদীতলে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।    

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পালন করা হয় নীরবতা। দুই নেতার পর জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। 

এরপর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা তার দলের পক্ষ থেকে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এছাড়া মহান বিজয় দিবসে উপলক্ষে পৃথক পৃথক বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং জাতীয় সংসদের বিরোধী দলের নেতা রওশন এরশাদ দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। 

প্রধান অতিথিদের শ্রদ্ধা জানানোর পর জাতীয় স্মৃতিসৌধ খুলে দেয়া হয় সাধারণ জনগণের জন্য।  

সকাল ১০টা থেকে তেজগাঁও পুরাতন বিমানবন্দরে জাতীয় প্যারেড স্কয়ারে সম্মিলিত বাহিনীর বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজ এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রমভিত্তিক যান্ত্রিক বহর প্রদর্শনী আরম্ভ হয়েছে। সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন রাষ্ট্রপতি মো.আব্দুল হামিদ। 

প্রধানমন্ত্রীও উপস্থিত আছেন এই অনুষ্ঠানটিতে।  

আজ  মহানগর, জেলা ও উপজেলায় বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা দেওয়া হবে।  

১৯৭১ সালের এই দিনে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃতে নয় মাস যুদ্ধের পর রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণ করে। আর এরই মধ্য দিয়ে জন্ম হয় বাংলাদেশ নামের একটি নতুন রাষ্ট্রের।  

দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। বড় বড় ভবন এবং সড়কগুলোতে পতাকা ও আলোকসজ্জা করা হয়েছে। 

এ উপলক্ষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী, বাংলা একাডেমী, জাতীয় জাদুঘর, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, বাংলাদেশ শিশু একাডেমীসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, শিশুদের চিত্রাঙ্কন, রচনা ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা এবং মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনের আয়োজন করেছে। 

 

এন/এসজে 

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়