close
ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ | ০১ পৌষ ১৪২৪

মায়ের প্রতি ভালোবাসা প্রতিদিন

রুবিনা ইয়াসমিন
|  ১৪ মে ২০১৭, ২২:২১ | আপডেট : ১৫ মে ২০১৭, ০০:০৪
`মা’শান্তির একটি ডাক। পৃথিবীর সবচেয়ে দৃঢ় সম্পর্কের নাম 'মা'। সবচেয়ে পবিত্র ও মধুর শব্দের নাম 'মা'। মায়ের ভালোবাসার কাছে জীবনে সব কিছুর হার মানে। সব কিছুর উর্ধ্বে রয়েছেন তিনি। মায়ের প্রতি ভালোবাসা শুধু বড় বড় দালানকোঠার মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। মায়ের প্রতি এ ভালোবাসা রয়েছ রাস্তার পাশে বা বস্তিতেও।

মা তারা বেগম। থাকেন তেজগাঁয়ের বস্তিতে। তিন ছেলে- মেয়ের জননী তিনি। খুব সকালে ঘুম থেকে উঠে চলে আসে কারওরান বাজারে। বড় বড় ট্রাক থেকে যখন সবজি নামানো হয় তখন তিনি ট্রাকের দিকে তাকিয়ে থাকে। কখন একটি সবজি বস্তার ফাঁক থেকে পড়বে আর তা কুঁড়িয়ে জমাবেন। যে সবজি গুলো পড়ে যায় তা কুঁড়িয়ে নিয়ে বিক্রি করতে বসেন কারওরান বাজারে। তারা বেগমকে জিজ্ঞাসা করা হলো আজ মা দিবস আপনি কি জানেন? তারা বেগম বললেন কোন দিবস যে কবে হয় তা জানিনা। শুধু জানি বাচঁতে হবে আর বাচঁতে হলে কাজ করে খেতে হবে। কোন দিবস আসলো আর গেলো তা আমার জানার দরকার নাই। মায়ের পাশে বসে ছেলে হৃদয় সবজি বিক্রি করছে। হ্নদয়কে জিজ্ঞাসা করা হলো আজ মা দিবস তুমি জানো? হৃদয় বললো এই যে সাংবাদিক মেডাম আমার নাম শুধু হৃদয় না আমার নাম হৃদয় খান বুঝলেন। খুব ভাব নিয়ে বললো কি জানতে চান বলেন? আজ মা দিবস তোমার মনে আছে? তুমি মাকে মা দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছো? হৃদয় বললো আমি সবজি বিক্রি করলেও আমি জানি আজ মা দিবস। আমি মাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছি। মায়ের থেকে আপন কেউ নাই। আমি আমার মাকে অনেক ভালোবাসি। আর আজকে না সবসময়ই ভালোবাসি। প্রতিদিনই তার প্রতি ভালবাসা থাকে।

তারা বেগমের মতো সকাল থেকে ৪টি কাঠাল আর কিছু ডেরস আর করলা নিয়ে বসেছেন জরিনা আক্তার ও তার এক মেয়ে। তাকে জিজ্ঞেস করা হলো আজ মা দিবস আপনি কি জাননে? জরিনা আক্তার বললো না মাগো তা জানি না। এসব জেনে আমাগো কি লাভ? আমাদের পেট বাচাঁনোর দরকার কাজ করি পেট বাঁচাই। মায়ের প্রতি কি একদিন ভালোবাসা হয় কন? আমি ও আমার মেয়েকে ভালোবাসি আমার মেয়েও আমাকে ভালোবাসে। আর এটাই হলো বড় ভালোবাসা।

জরিনা আরো বলেন, দেখেন আমরা সারাদিন এইরকম ভাবে এখানে বসে সবাই সবজি বিক্রি করি। বাসায় গিয়ে রান্না করি, স্বামী-সন্তানদের নিয়ে থাকি আর কাজ করি। মায়ের প্রতি সন্তানের ভালোবাসা আছে আর সন্তানের প্রতিও মায়ের ভালোবাসা আছে। আলাদা করে আলাদা দিনে ভালোবাসলে কি হবে বলেন? বড়লোকের সন্তানরা যেমন মায়েগো ভালোবাসে আমগো গরীব ঘরের পোলাপাইনও আমগো ভালোবাসে। তবে বড়লোকের পোলাপাইন মানুষ হয়না এ গুলো অমানুষ হয়। ওই যে দেহেন না আপন জুয়েলার্স এর পোলা কি করছে। আমগো পোলাপাইন এইসব করবো না।আমরা কাজ করি আর খাই। আমরা অনেক সুখেই আছি।

মাকে ভালোবাসা-শ্রদ্ধা জানানোর কোনো দিনক্ষণ ঠিক করে হয় না। তবুও মাকে গভীর মমতায় স্মরণ করার দিন আজ। জগতে মায়ের মতো এমন আপনজন আর কে আছেন! তাই প্রতি বছর এই দিনটি স্মরণ করিয়ে দেয় প্রিয় মমতাময়ী মায়ের মর্যাদার কথা। মাকে ভালোবাসা আর তার প্রতি হৃদয় নিংড়ানো শ্রদ্ধার বিষয়টি পবিত্র ধর্মগ্রন্থগুলোতে অনেক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। বিশ্ব মা দিবসের ইতিহাস শতবর্ষের পুরনো। যুক্তরাষ্ট্রে আনা জারভিস নামের এক নারী মায়েদের অনুপ্রাণিত করার মাধ্যমে দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে স্বাস্থ্য সচেতন করে তুলতে উদ্যোগী হয়েছিলেন।

১৯০৫ সালে আনা জারভিস মারা গেলে তার মেয়ে আনা মারিয়া রিভস জারভিস মায়ের কাজকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য সচেষ্ট হন। ওই বছর তিনি তার সান ডে স্কুলে প্রথম এ দিনটি মাতৃ-দিবস হিসেবে পালন করেন। ১৯০৭ সালের এক রোববার আনা মারিয়া স্কুলের বক্তব্যে মায়ের জন্য একটি দিবসের গুরুত্ব ব্যাখ্যা করেন। ১৯১৪ সালের ৮ মে মার্কিন কংগ্রেস মে মাসের দ্বিতীয় রোববারকে মা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। এভাবেই শুরু হয় মা দিবসের যাত্রা। এরই ধারাবাহিকতায় আমেরিকার পাশাপাশি মা দিবস এখন বাংলাদেশসহ অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল, কানাডা, চীন, রাশিয়া ও জার্মানসহ শতাধিক দেশে মর্যাদার সঙ্গে দিবসটি পালিত হচ্ছে।

আর/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়