• ঢাকা রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫

পাকিস্তানের পণ্য বর্জনের ঘোষণা

নুসরাত জাহান সিনথী
|  ২১ মার্চ ২০১৭, ০৯:৩৭ | আপডেট : ২১ মার্চ ২০১৭, ২১:২৭
২১ মার্চ ১৯৭১। এদিন স্বাধীনতার জন্য বাঙালির আন্দোলন সংগ্রামে উত্তাল ছিলো বাংলাদেশ। এদিন রাস্তার মোড়ে মোড়ে খণ্ড খণ্ড সভা-সমাবেশ থেকে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে সারাদেশে।

প্রেসিডেন্ট হাউসে ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে প্রায় ৯০ মিনিট বৈঠক করেন বঙ্গবন্ধু। কিন্তু কোনো রকম সমঝোতা ছাড়াই শেষ হয় সেই বৈঠক। আর সে সময় বাঙলার সাহসী সন্তানদের দীপ্তমিছিল গিয়ে জড়ো হচ্ছিলো বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডির বাড়ির সামনে।

বিকেলে বঙ্গবন্ধু অপেক্ষমাণ জনস্রোতকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘সাড়ে সাত কোটি মানুষের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত, আন্দোলনের গতি কোনভাবেই মন্থর করা যাবে না।’

এদিকে, সবার অগোচরে পাকিস্তান সরকার স্থল ও নৌশক্তি বাড়াতে থাকে। ব্রিটিশ সরকারও এদিন বাংলাদেশে যাতায়াতের জন্য পাকিস্তানি বিমান ও জাহাজকে মালদ্বীপের ব্রিটিশ ঘাঁটি ব্যবহারের অনুমতি দেয়।

এ অবস্থার মধ্যেই ঢাকায় আসেন জুলফিকার আলী ভুট্টো। মুজিব-ইয়াহিয়া বৈঠকের অগ্রগতি জানার পর তিনি ইয়াহিয়াকে বলেন, ‘সম্মুখে অপেক্ষমাণ আলোচনায়, সমঝোতা সম্ভব নয়।’

এ সময় ‘স্বাধীন বাংলাদেশ শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ’২৩ মার্চ থেকে পশ্চিম পাকিস্তানের পণ্য বর্জন সপ্তাহ পালনের ঘোষণা দেয়।

এদিন গাজীপুরে জারিকৃত কারফিউ ছয় ঘণ্টার জন্য তুলে নেয়া হয়। সন্ধ্যা ৬টা থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য আবারো কারফিউ বলবৎ করা হয়।

আরকে/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়